ভুয়া পরিচয়ে স্পার্ম ডোনেট করে মামলায় জড়ালেন যুবক

|

ছবি: সংগৃহীত

দ্বিতীয় সন্তানের জন্য একজন ডোনার খুঁজে তার সাথে রাত যাপন করেছিলেন জাপানের এক নারী। গর্ভবতীও হন। কিন্তু পরে জানতে পারেন স্পার্ম ডোনার ভুয়া পরিচয়ে তার সাথে মিলিত হয়েছে। ওই স্পার্ম ডোনারের পরিচয় জানার পর জাপানি সেই নারী তার সন্তানকে দত্তক দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। নিউ ইয়র্ক পোস্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ৩০ বছর বয়সী ওই নারী সেই ভুয়া পরিচয় দেয়া স্পার্ম ডোনারের বিরুদ্ধে প্রায় তিন মিলিয়ন ডলারের মামলা করেছেন।

ওই নারী জানতেন যে, তিনি একজন সচ্ছল জাপানি পুরুষ খুঁজে পেয়েছেন যিনি কিয়োটো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছেন। যদিও ওই নারীর স্বামী ও সন্তান রয়েছে। কিন্তু তার স্বামীর বংশগত রোগ ছিল যা তার সন্তানদের মধ্যেও চলে আসতে পেরে জেনে তিনি দ্বিতীয় সন্তানের জন্য আলাদা একজন স্পার্ম ডোনারকে খুঁজছিলেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে তিনি একজনকে পেয়েও গিয়েছিলেন যিনি ভুয়া পরিচয় দিয়ে তার সাথে রতিক্রিয়ায় লিপ্ত হন। এরপর ২০১৯ সালের জুলাইতে তাদের চেষ্টা সফল হয়। ওই নারী গর্ভবতী হন। কিন্তু গর্ভবতী হওয়ার এক পর্যায়ে ওই নারী জানতে পারেন তার অনাগত সন্তানের বাবা (স্পার্ম ডোনার) একজন বিবাহিত চীনা নাগরিক। এমনকি কোনো ভাল বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়াশোনা করেননি তিনি।

কিন্তু যতক্ষণে তিনি জানতে পারেন ততক্ষণে গর্ভপাত করানোর আর সুযোগ ছিল না। তাই তিনি ওই প্রতারকের বিরুদ্ধে মামলা ঠুকে দেন এবং সন্তানকে দত্তক দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

/এনএএস


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply