বিচ্ছেদের ৫০ বছর পর ফের বিয়ের পিঁড়িতে

|

বিচ্ছেদ হয়েছে ৫০ বছর, এরমাঝে দুজনেই বিয়ে করে সংসার করেছে। এখন দুজনেই বার্ধক্যে কিন্তু হঠাৎ করে এক অনুষ্ঠানে তাদের দেখা হয়ে যায়। পুরোনো মানুষকে বহুবছর পর নতুন করে দেখলে প্রায় এক ধাক্কায় অনেক সুখস্মৃতি ভিড় করে আসে। এক্ষেত্রেও তার ব্যাতিক্রম হয়নি। অনুষ্ঠানের ভিড় থেকে প্রায় আলাদা হয়ে গিয়েই স্মৃতিচারণে মেতে ওঠেন দুজন। স্মৃতিচারণে উঠে আসে তাঁদের অল্প বয়সের দাম্পত্য, প্রথম সন্তান, বিবাহ বিচ্ছেদ। দু’জনেই খুশি হয়ে যান। তারপর দু’জনেই সিদ্ধান্ত নেন, জীবনের শুরুটা যখন একসঙ্গে কাটিয়েছেন, তখন শেষটুকু কেন আলাদা হবে ? তাই বয়সকে থোড়াই কেয়ার করে ফের বিয়ের পিঁড়িতে এই দম্পতি। এ ঘটনা ঘটেছে আমেরিকার কেনটাকিতে।

জানা যায়, বর্তমানে তিরাশির হ্যারল্ড হল্যান্ড ও তিয়াত্তর বছরের লিলিয়ান বার্নস ১৯৫৫ সালে প্রথম একসঙ্গে পথচলা শুরু করেন। ১২ বছরের বিবাহিত জীবনে তাঁদের পাঁচটি সন্তানও জন্মায়। ১৯৬৭ সালে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যায় দু’জনের।  পরে দু’জনেই নিজেদের পছন্দের মানুষকে বিয়ে করে পুনরায় দাম্পত্য সম্পর্কে জড়ান। এই সময় থেকে আচমকাই দেখা-সাক্ষাৎ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল হ্যারল্ড ও লিলিয়ানের। প্রবীণ ব্যক্তিদের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন লিলিয়ান, হ্যারল্ড। নতুন দাম্পত্যেও ততদিনে পুরোনো ধুলোর ছাপ। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শারীরিক অসুস্থতাও বাসা বেঁধেছে। এতসব ঝামেলার মধ্যে তারুণ্যের প্রেমের স্মৃতি কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছিল। ২০১৫ সালে আচমকাই সেই বাঁধাধরা নিয়মে ছেদ পড়ে। লিলিয়ানের দ্বিতীয় স্বামী ও হ্যারল্ডের দ্বিতীয় স্ত্রীর মৃত্যু হয়। স্বাভাবিকভাবে বার্ধক্যের অপরাহ্নে এসে ফের একাকিত্ব গ্রাস করে দু’জনকে। এভাবেই চলছিল।

কিছুদিন আগে এক পারিবারিক পুনর্মিলন উৎসবে আমন্ত্রণ পান লিলিয়ান। সেখানে গিয়ে দেখা হয় হ্যারল্ডের সঙ্গে। তিনিও ছিলেন আমন্ত্রিতের তালিকায়। এরপর দুজনেই স্মৃতিচারণে নিজেদের খুঁজে বেড়ান। পরে নিজেরা সিদ্ধান্ত নেয় বাকি বসন্তগুলি যেন ভাল কাটে। তাই  ১৪ এপ্রিল তাঁদের নাতির উপস্থিতিতেই এলাকার একটি গীর্জায় তাঁদের বিয়ে।

এদিকে লিলিয়ান যা চাইবে, যখন চাইবে, তাই দেওয়ার চেষ্টা করবেন হ্যারল্ড। যেখানে ঘুরতে যেতে চাইবে, কোনওরকম প্রশ্ন না করে সেখানেই স্ত্রীকে নিয়ে যেতে চান তিনি।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply