পদ্মা পাড়ে গ্যাসফিল্ডের সন্ধান?

|

স্টাফ রিপোর্টার, মাদারীপুর

মাদারীপুরের শিবচরসহ পদ্মার এই পাড় অংশে গ্যাস ও খনিজ সম্পদ অনুসন্ধানের তৎপরতা যতই বাড়ছে ততোই আশাবাদী হয়ে উঠছেন মাঠ পর্যায়ের অনুসন্ধানকারী দল বাপেক্স ও চীনের সিনোপ্যাক । সরেজমিনে গেলে অনুসন্ধানকারীরা দাবি করেন প্রাথমিক রিপোর্টে তারা ৮০ ভাগ নিশ্চিত পদ্মা পাড়েই মিলবে গ্যাস ক্ষেত্রসহ খনিজ সম্পদ। বহুল প্রত্যাশিত পদ্মা সেতুকে ঘিরে শিল্পায়নের লক্ষ্য নিয়ে পদ্মা পাড়ে গ্যাস ক্ষেত্র অনুসন্ধানে বাপেক্স ও চীনের সিনোপ্যাক কোম্পানী এক সপ্তাহ ধরে ব্যাপক অনুসন্ধান কার্যক্রম চালাচ্ছেন।

সরেজমিনে বাপেক্স অনুসন্ধানকারী টিমসহ একাধিক সূত্রে জানা যায়, পদ্মা সেতুকে ঘিরে এখন মহাব্যস্ত পদ্মা পাড়ের মাদারীপুরের শিবচরসহ মুন্সীগঞ্জ ও শরীয়তপুরের প্রত্যন্ত জনপদ। পদ্মা সেতুর ৩টি স্প্যান স্থাপন শেষে ৪র্থ স্প্যান বসানোর প্রস্তুতি চলছে। সম্পন্ন হয়েছে উভয় পাড়ের সংযোগ সড়ক, পুনর্বাসন প্রকল্পসহ সেতুর নানান প্রকল্প। বহুল প্রত্যাশিত সেতুকে ঘিরে শিবচর হয়ে দেশের প্রথম ৬ লেন এক্সপ্রেস হাইওয়ে, শেখ হাসিনা আইসিটি ইনষ্টিটিউট এন্ড হাইটেক পার্ক, অলিম্পিক ভিলেজ, বেনারসী পল্লীসহ নানান মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এরইমাঝে গত এক সপ্তাহ ধরে পদ্মা পাড়ের এ অংশে শিবচরের কাঠালবাড়িসহ বিভিন্ন এলাকায় গ্যাসসহ খনিজ সম্পদ সন্ধানে ব্যাপক তৎপরতা শুরু করেছে বাপেক্স ও চীনের সিনোপ্যাক কোম্পানী।

বাপেক্স ও সিনোপ্যাক আলফা, ব্রাবো, ডালটা ও চার্লি গ্রুপে ভাগ হয়ে খনন কাজ করছে। প্রতিদিন প্রায় ৪০-৪৫ টি স্পটে খনন কাজ করছে প্রতিষ্ঠান দুটি। খনন করে ভূপৃষ্টের গভীরতা, ক্যানেল, লেয়ার পর্যালোচনা করে গ্যাস সন্ধানে জোড়ালো আশাবাদী হয়ে উঠেছে প্রতিষ্ঠান দুটি। প্রতিটি টিমে ১শ ৪০ জন সদস্য এ কাজে সম্পৃক্ত রয়েছেন, যাদের মধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য সংখ্যক চীনের প্রকৌশলী। প্রতিষ্ঠান ২টি শিবচর পৌরসভার ইলিয়াছ আহম্মেদ চৌধুরী দাদাভাই হাউজিং এ অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করে কার্যক্রম চালাচ্ছেন।

সরেজমিনে পাচ্চর এলাকায় গিয়ে দেখা যায় এ যেন যুদ্ধের প্রস্তুতি বাপেক্স ও সিনোপ্যাকের। এক একটি টিমে শতাধিক সদস্য একের পর এক খনন করছেন গ্যাসের সন্ধানে। প্রচণ্ড গরম উপেক্ষা করেই মাঠ ঘাট চষে বেরাচ্ছেন তারা। ভোর থেকে এক এক এলাকায় নেমে ৭০-৮০ ফুট খনন করছেন চোখের নিমিষেই। বসানো হচ্ছে ডিনামাইড।

পাচ্চরের বাহাদুরপুরে কর্তব্যরত ড্রিলিং সেকশন আলফা টিমের সুপারভাইজার মোঃ সুরুজ্জামান বলেন , পদ্মা পাড়ের এ এলাকায় আমরা অধিক গুরুত্ব দিয়ে অনুসন্ধান করছি। প্রাথমিক রিপোর্ট খুবই আশাব্যঞ্জক। পদ্মা পাড়ে আমরা গ্যাস ক্ষেত্র সন্ধানে খুবই আশাবাদী।

চীনের এক প্রকৌশলী বো বো বলেন, এ এলাকায় গ্যাস সন্ধানে আমরা আশাবাদী।

বাপেক্স এর ড্রিলিং ইনচার্জ প্রকৌশলী আমির হোসেন বলেন, পদ্মা সেতুকে ঘিরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক ইচ্ছা পদ্মা পাড়ের এ অংশে গ্যাস ক্ষেত্র অনুসন্ধানের। তাই বাপেক্স ও চীনা কোম্পানি শিবচরসহ পদ্মা পাড়ে ব্যাপক অনুসন্ধান শুরু করেছে। গ্যাস পাওয়ার ক্ষেত্রে আমরা প্রাথমিকভাবে ৮০ ভাগ আশাবাদী। বিস্তারিত রিপোর্টের পর পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান আহমেদ বলেন, পদ্মা সেতুকে ঘিরে শিবচরে প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় সংসদ সদস্যর উদ্যোগে দেশের বড় বড় মেগা প্রকল্পর কাজ চলছে। তার সাথে গ্যাসের প্রাপ্তি শিল্প বিপ্লব ঘটাবে।
আওয়ামীলীগ পার্লামেন্টারি পার্টির সেক্রেটারি ও অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি নূর ই আলম চৌধুরী এমপি সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, গ্যাসসহ খনিজ সম্পদ অনুসন্ধান সফল হলে শিবচরসহ অত্র অঞ্চলে অর্থনৈতিক বিপ্লব ঘটবে।









Leave a reply