প্রধানমন্ত্রীর কাছে মাফ চাইলেন মুরাদ

|

ডা. মুরাদ হাসান।

বিতর্কিত মন্তব্য ও নৈতিক স্খলনের কারণে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিতে বাধ্য হওয়া মুরাদ হাসানকে এবার জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। একই দিন ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে মা-বোনদের কাছে ক্ষমা চান তিনি। এবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছেও ক্ষমা চাইলেন তিনি।

বুধবার বিকেলে এক ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ক্ষমা চান তিনি। ডা. মুরাদ হাসান লেখেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পরম শ্রদ্ধেয় মমতাময়ী মা, বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনা, আমি যে ভুল করেছি তা আল্লাহর ওয়াস্তে আমাকে মাফ করে দিবেন। আপনি যে সিদ্ধান্ত দিবেন তা আমি সবসময়ই মাথা পেতে নিবো আমার বাবার মতো।
জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু
জয় শেখ হাসিনা।

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নাতনি জাইমা রহমানকে নিয়ে প্রতিমন্ত্রীর করা অশ্লীল মন্তব্য নিয়ে কয়েকদিন ধরেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তীব্র সমালোচনা হচ্ছিল। এর মধ্যেই ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিমন্ত্রীর ফোনালাপের একটি অডিও ছড়িয়ে পড়ে, যেখানে চিত্রনায়ক ইমনের ফোনে কল দিয়ে চিত্রনায়িকা মাহির সাথে অশ্লীল ও আপত্তিকার ভাষা ব্যবহার করতে শোনা যায় তাকে। এছাড়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের নিয়ে অশালীন মন্তব্য করেও নিন্দিত হন তিনি। এ পরিস্থিতি তীব্র বিতর্ক তৈরি হলে তাকে পদত্যাগের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আরও দেখুন: মুরাদকে উপজেলা আ’লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply