ইউক্রেন ইস্যুতে পাল্টাপাল্টি হুমকি যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়ার

|

দ্বিপাক্ষিক সংবাদ সম্মেলনে ব্লিনকেন ও ল্যাভরভের পাল্টাপাল্টি হুমকি। ছবি: সংগৃহীত

ইউক্রেন ইস্যুতে হুমকি-হুঁশিয়ারিতে জড়ালো যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়া। গত বৃহস্পতিবার (২ডিসেম্বর) সুইডেনে যৌথ সংবাদ সম্মেলন করেন দু’দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। সেখানেই যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন হুমকি দেন, ইউক্রেনে আগ্রাসন চালালে পরিণাম ভালো হবে না; দিতে হবে চরম মূল্য। জবাবে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ জানান, প্রতিবেশীর সাথে সহিংসতায় আগ্রহী নয় তার দেশ। তবে সহ্য করা হবে না ন্যাটোর হস্তক্ষেপ।

রুশ-ইউক্রেন সীমান্তের দু’পাশেই চলছে রণপ্রস্তুতি। বিরাজ করছে সহিংসতায় জড়ানোর চাপা উত্তেজনা। এতে যুক্তরাষ্ট্র থেকে শুরু করে ইউরোপের প্রায় সব দেশ উদ্বিগ্ন। পুতিন প্রশাসনকে কয়েকদিন ধরেই সতর্কবার্তা দিচ্ছে তারা। এ পরিস্থিতির মধ্যেই দ্বিপাক্ষিক সংবাদ সম্মেলনে মস্কোকে হুমকি দিলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। জানান, প্রতিবেশীর উপর আগ্রাসন চালালে দিতে হবে চড়া মূল্য।

অ্যান্টনি ব্লিনকেন বলেন, ইউক্রেনে আগ্রাসন চালানোর সম্ভাবনায় শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, গোটা ইউরোপ উদ্বিগ্ন। বরাবরই বলে আসছি, দেশটির সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতার ব্যাপারে শক্ত অবস্থানে আমরা। সতর্ক করার পরও যদি রাশিয়া হামলা চালায়, তাহলে গুণতে হবে চড়া মূল্য। সময় থাকতে সীমান্ত থেকে সেনাবহর সরিয়ে নিন। সবচেয়ে বড় কথা, কূটনীতির মাধ্যমেই এ সংকট এড়ানো সম্ভব।

আরও পড়ুন: যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম আইনপ্রণেতাকে হত্যার হুমকি

দমে যায়নি রাশিয়াও। স্পষ্টভাবে জানিয়েছে, আঞ্চলিক চুক্তিগুলো মেনে চললে বিবাদ গড়াবে না সহিংসতায়। সের্গেই ল্যাভরভ বলেন, ইউক্রেন সংকট সমাধানে যৌথভাবে কাজ করতে চায় রাশিয়া। আঞ্চলিক চুক্তিগুলো লঙ্ঘন না করলে যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতা নিতে আপত্তি নেই। আলোচনার জন্যেও আমরা প্রস্তুত। কারণ, প্রেসিডেন্ট পুতিনের বক্তব্য হচ্ছে, ইউক্রেন সীমান্তে কোনো সহিংসতা চান না তিনি। তবে রুশ ভূখণ্ডের কাছে ন্যাটোর আনাগোনাও সহ্য করা হবে না।

গেল মাস থেকেই উত্তপ্ত রুশ-ইউক্রেন সীমানা। কিয়েভের অভিযোগ, যেকোনো সময় হামলা চালাতে অন্তত ৯০ হাজার সেনা মোতায়েন করেছে রুশ প্রশাসন। অন্যদিকে মস্কো বলছে, প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর অর্ধেক লোকবলই বর্তমানে অবস্থান করছে সীমান্তরেখায়।

আরও পড়ুন: ভাবির সাথে পরকীয়া, সুইসাইড নোট লিখে যুবকের আত্মহত্যা


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply