গরু-বিমান সংঘর্ষের পরও অরক্ষিত কক্সবাজার বিমান বন্দরের রানওয়ে

|

ছবি: সংগৃহীত

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

কক্সবাজার-ঢাকা আকাশ পথে এ মুহূর্তে দৈনিক ৪০টি ফ্লাইট চলাচল করছে। এ কারণে ঢাকার পর দেশের অভ্যন্তরীণ বিমান চলাচলে সবচেয়ে ব্যস্ততম বিমান বন্দর হচ্ছে কক্সবাজার। আর দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিমান বন্দরটিরই এখন নিরাপত্তা ব্যবস্থা হয়ে পড়েছে বেহাল। বিমান বন্দরের রানওয়ের নিরাপত্তাই এখন সবচেয়ে আলোচনার বিষয় হয়ে উঠেছে।

মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) সন্ধ্যায় ঢাকাগামী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বোয়িং ৮ ক্রু ও ৯৪ জন যাত্রী নিয়ে অল্পের জন্য রক্ষা পাবার বিষয়টি সবাইকে উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। দেশের অন্যতম ব্যস্ততম কক্সবাজার বিমান বন্দরের রানওয়ের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় এমন দৈব্য দুর্ঘটনার ঘটনা ঘটছে। বিমান উড্ডয়ন ও অবতরণের সময় উত্তর পাশের রানওয়েতে লোকজনের চলাচলসহ গবাদি পশুর বিচরণ সবচেয়ে বেশি উদ্বেগ বাড়িয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উড্ডয়নের সময় বিমানের সঙ্গে ২টি গরুর ধাক্কা লাগার বিষয়টি বিমান যাতায়াতে জড়িত সংশ্লিষ্ট সবাইকে ভাবিয়ে তুলেছে। বিমানের ডানার ধাক্কা খেয়ে দুটি গরু মারা গেলেও একটুর জন্য বেঁচে যায় বিমানে থাকা ৮ ক্রু ও ৯৪ আরোহী। অথচ নেই কোনো জোরদার নিরাপত্তা কর্মী। যারা আছেন তাদের বিরুদ্ধে টাকার বিনিময়ে বিমানবন্দর সীমানা টপকে লোকজনের চলাচল, গবাদি পশুর ঘাস ও বিমানবন্দরের অভ্যন্তরে গরু-ছাগল চরানোর অনুমতি মিলে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার বিকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড উত্তর নুনিয়ারছড়া এলাকায় বিমানবন্দরের কাঁটা তারের বেড়া টপকে লোকজন চলাচল করছে। সীমানার ভেতর ঘাস খেতে বিচরণ করছে অর্ধশতাধিক গরু-ছাগল। অপর পাশে চলছে বিমানবন্দর সংস্কারের কাজ এবং দু’জন আনসার সদস্যের টহল।

এ সময় দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা জানান, সীমানা প্রাচীর না থাকায় এবং তারের বেড়ার বেশ কয়েক জায়গায় ছিদ্র থাকায় মানুষ ও গরু-ছাগল বিমান বন্দরে ঢুকে পড়ে। চলাচলকারী মানুষদের নিষেধ করলেও তারা শুনেন না। উল্টো তারা মারতে আসেন বলে জানিয়েছেন আনসার সদস্যরা।

অপরদিকে চলাচলকারী স্থানীয়রা জানান, যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো না হওয়ায় তারা বাধ্য হয়ে বিমান বন্দর অতিক্রম করে যাতায়াত করেন। আবার স্থানীয় অনেকের গবাদি পশু বিমান বন্দরের ভেতর বেঁধে দেন ঘাস খাওয়ার জন্য। কতিপয় আনসার সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, মানুষ ও গবাদি পশু চলাচলের বিনিময়ে টাকা নেয়ার।

এদিকে এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ব্যবসায়ী নেতারা। তারা বলছেন, আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে রূপ নিতে যাওয়া এই বিমান বন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও কঠোর হওয়া দরকার।

বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক গোলাম মোর্তুজা ক্যামেরায় কথা বলতে রাজি না হলেও জানান, অসম্পূর্ণ সীমানা প্রাচীরের কাজ শুরু হয়েছে। রানওয়েতে গরুর সাথে বিমানের সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করেছে।

মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) সন্ধ্যার আগে বিমান ও গরুর সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ আনসার সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এছাড়া এ ঘটনায় ৪ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ইউএইচ/


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply