৬ প্রার্থীর কেউই নিজের ভোটও পাননি!

|

নিজস্ব প্রতিবেদক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া:

তৃতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার একটি ইউনিয়নে বিরল ঘটনা ঘটেছে। সাধারণ ইউপি সদস্য পদে ৭জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও ভোট পেয়েছেন কেবল একজন প্রার্থী। বাকি ছয় প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোট শূন্য। এর ফলে প্রশ্ন উঠেছে প্রতিদ্বন্দ্বী ছয় প্রার্থীর নিজের ভোট গেল কোথায়? তাদের পরিবার ও সমর্থকরাও কি তাদেরকে ভোট দেননি? প্রতিদ্বন্দ্বী একজন প্রার্থী নিজের প্রতীকে নিজের ভোট দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় গত ২৮ নভেম্বর বাঞ্ছারামপুর উপজেলার মানিকপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই ইউনিয়নে ৪নং ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য পদে ৭জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এরা হলেন- কাউসার মিয়া (ভ্যানগাড়ি), মোতালিব মিয়া (ঘুড়ি), মো. আলমগীর (আপেল), জাহাঙ্গীর হোসেন (তালা), মিস্টার আলী (ফুটবল), সফিকুল ইসলাম (মোরগ) ও হাসান মিয়া (বৈদ্যুতিক পাখা)।

৪ নম্বর ওয়ার্ডের মায়ারামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের মোট ভোটার সংখ্যা দুই হাজার ১৬৩। এ কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন এক হাজার ১৬১ জন ভোটার। এর মধ্যে বৈধ ভোট দেখানো হয়েছে এক হাজার ১৫৫টি। আর বাতিলকৃত ভোট সংখ্যা ছয়টি। তবে বৈধ এক হাজার ১৫৫টি ভোটের সবকটিই হাসান মিয়ার বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীকে পড়েছে বলে প্রিজাইডিং অফিসার সাক্ষরিত ফলাফল শিটে উল্লেখ করা হয়েছে।

ভোট না পাওয়া ছয় প্রার্থীর মধ্যে মুঠোফোনে দুইজনের সঙ্গে কথা হয়েছে প্রতিবেদকের। বাকি চার প্রার্থীর মুঠোফোন কল করা হলে তারা রিসিভ করেননি।

সদস্য পদে মোরগ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী সফিকুল ইসলাম জানান, তিনি ভোটকেন্দ্রে গিয়ে নিজের প্রতীকেই নিজের ভোট দিয়েছেন। কিন্তু কেন তার প্রাপ্ত ভোট শূন্য উল্লেখ করা হয়েছে, সেটি তার বোধগম্য হচ্ছে না।

আরেক প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ভোটের দুইদিন আগে স্থানীয় নেতারা এসে এক প্রার্থীকে সিলেক্ট করার কথা জানিয়ে তাকে নির্বাচন থেকে সরে যেতে বলেন। সেজন্য ক্ষোভে তিনি কেন্দ্রে যাননি।

নির্বাচনে বিজয়ী হওয়া প্রার্থী হাসান মিয়া বলেন, অন্য প্রার্থীরা আমাকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচনে থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। গ্রামবাসীও আমাকে সমর্থন দিয়েছেন।

এই ব্যাপারে মায়ারামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্বে থাকা হুসাইন মোহাম্মদ বেলাল বলেন, ভোটের আগেরদিন শুনেছি সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী প্রার্থীদের মধ্যে একজনকে সমর্থন দিয়ে অন্য প্রার্থীরা সরে দাঁড়িয়েছেন। আমার কেন্দ্রে ভোট গ্রহণে কোনো ধরনের সমস্যা হয়নি। আমার কাছে কেউ কোনো অভিযোগও করেনি।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply