কুড়িগ্রামে চাঁদাবাজির সময় ভুয়া সিআইডি কর্মকর্তা আটক

|

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, কুড়িগ্রাম:

কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলায় চাঁদাবাজির সময় সিআইডি পরিচয়ধারী এক প্রতারককে আটক করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা।

মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) দুুপুরে চিলমারী উপজেলার রমনা ঘাটে এ ঘটনা ঘটে। আটককৃত ভুয়া সিআইডি কর্মকর্তার নাম সাজু আহমেদ পায়েল ওরফে সুমন (২৫)। সে রংপুর জেলার কাউনিয়া উপজেলার রাজিব শঠিবাড়ি গ্রামের আব্দুল আউয়ালের ছেলে।

অভিযোগকারী ভুক্তভোগী রমনা ঘাটের মুদির দোকানদার আলমগীর ইসলাম বলেন, মঙ্গলবার দুুপুরে সুমন পরিচয়ে এক ব্যক্তি আমার দোকানে এসে গ্যাসের ওষুধ চান। আমি তাকে বলি ভাই আমার তো মুদির দোকান, এখানে কোনো ওষুধ নেই। তিনি অনেক অনুরোধ করে বলেন, আপনার বাড়ি থেকে একটি গ্যাসের ওষুধ এনে দেন আমার পেটে সমস্যা হচ্ছে। পরে বাড়ি থেকে একটি গ্যাসের ওষুধ এনে দেই। সে ওষুধ হাতে নিয়ে বলেন, আমি সিআইডির লোক। আপনি অবৈধভাবে ওষুধ বিক্রি করেন। আমার সাথে চলেন থানায়। পরে তাকে বলি স্যার আমি তো গরিব মানুষ। এসময় তিনি আমার কাছে ১০ হাজার টাকা দাবি করেন। একপর্যায়ে তিনি ৫ হাজার টাকা দাবি করেন ও পরবর্তীতে ১ হাজার টাকা নেন।

তার সাথে কথা বলার সময় দুয়েকজন মানুষ জড়ো হতে শুরু করে। এরপর কথাবার্তা সন্দেহ মনে হওয়ায় চিলমারী থানায় ফোন দেই। পরে পুলিশ এসে তাকে নিয়ে যায়। এই বিষয়ে আমি থানায় অভিযোগ করেছি।

চিলমারী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ারুল ইসলাম ভুয়া সিআইডি কর্মকর্তা আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আটক ব্যক্তির কাছ থেকে একটি ভুয়া সিআইডি কার্ড এবং একটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ভুয়া সিআইডি কর্মকর্তা সাজু আহমেদ পায়েল ওরফে সুমনের নামে চট্রগ্রাম সিএম ও ফটিকছড়ি থানা, হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ থানা, নীলফামারীর ডিমলা থানা, মৌলভীবাজার সদর ও বড়লেখা থানা এবং রংপুরের কোতোয়ালি থানায় চাঁদাবাজি ও প্রতারণার মামলা রয়েছে। সুমনের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বুধবার তাকে কোর্টে প্রেরণ করা হবে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply