অবশেষে ভেঙেই ফেলতে হচ্ছে ময়ূর নদের সেতুটি

|

মাত্র ৬ বছর আগে প্রায় ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে খুলনার ময়ূর নদের ওপর নির্মিত সেতুটি অবশেষে ভেঙেই ফেলতে হচ্ছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগ, সওজের ক্রটিপূর্ণ নকশা, অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে অপরিকল্পিকভাবে সেতু নির্মাণে ক্রমশই সংকুচিত হচ্ছে ময়ূর নদ। আর সামান্য বৃষ্টিতে সেতুর সবশেষ গার্ডারটি পানি ছুয়ে যাওয়ায় কোনো ধরনের নৌ চলাচল করতে না পারায় এটি এখন অকার্যকর সেতুতে পরিণত হয়েছে।

ময়ূর নদের ওপর ব্রিটিশ আমলে নির্মিত সেতুটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়লে ২০১৫ সালে খুলনা সড়ক ও জনপথ বিভাগ ৬ কোটি ৯০ লাখ টাকা ব্যয়ে পুরাতন সেতুর গাঁ ঘেষেই নতুন একটি সেতু নির্মাণ করে। মাত্র ছয় বছরের মাথায় ব্রিজটি ভেঙে ফেলার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

সম্প্রতি বিআইডব্লিউটিএর ত্রিবিভাগীয় কমিটি সেতু পরিদশন করে সওজের কাছে প্রতিবেদন দিয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্ষাকাল বা জোয়ারে পানির উচ্চতা বেড়ে গেলে গার্ডার অর্থাৎ সেতুর ফাঁকা অংশটুকু পানিতে ভরাট হয়ে রীতিমত বাঁধে পরিণত হয়। সেতুর উল্লম্ব ও আনুভূমিক দূরত্ব এতটাই কম যে, তলদেশ দিয়ে নৌযান চলাচল করতে পারছে না। তারপরও এই নির্মাণকে যৌক্তিক দাবি সড়ক বিভাগের তৎকালীন দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার।

রাষ্ট্রীয় অর্থ অপচয়ে ক্ষোভ জানিয়ে টিআইবি বলছে, পুরানো সেতুর তুলনায় নতুনটি আরও নিচু করে নির্মিত হলো কীভাবে তার তদন্ত প্রয়োজন। খাতিয়ে দেখা উচিত অর্থ বরাদ্দ ও খরচের বিষয়টিও।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply