দাবি না মানলে শনিবার থেকে লাগাতার কর্মসূচির ঘোষণা শিক্ষার্থীদের

|

গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়া, নিরাপদ সড়ক ও তেলের দাম কমানোসহ সাত দফা দাবিতে রাজধানীর বেশ কয়েকটি স্থানে সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করেছে শিক্ষার্থীরা। উত্তরায় পৌনে দুই ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে রাখা হয়। বিক্ষোভ হয়েছে ফার্মগেটেও। এ সময় পুলিশের সহায়তায় ড্রাইভিং লাইসেন্স ও গাড়ির ফিটনেস সনদ ঠিক আছে কিনা তা যাচাই করে ছাত্ররা। দাবি না মানা হলে শনিবার (২৭ নভেম্বর) থেকে লাগাতার কর্মসূচি দেয়ার ঘোষণা দেয় শিক্ষার্থীরা।

রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের সামনে বিমানবন্দর সড়কে শিক্ষার্থীরা অবস্থান করে। একে একে আশেপাশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরাও যোগ দেয়। শুরুতেই ঢাকার বাহির পথ সড়কের পশ্চিম পাশ বন্ধ করে স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে পুরো এলাকা। পরে দুই পাশ বন্ধ করে বাসে হাফ পাসসহ বিভিন্ন দাবি তুলে ধরে তারা।

আরও পড়ুন: বাস মালিকরা হাফ পাসে রাজি না, সিদ্ধান্ত ছাড়াই বৈঠক শেষ

এ সময় দুই পাশে আটকে থাকা গাড়ির চালকদের সনদ যাচাই করে কিছু ছাত্র। পরে হাউস বিল্ডিং পর্যন্ত একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে আরও বড় জমায়েত হয় তাদের। সেখানে সাত দফা দাবি তুলে ধরা হয়। তেলের দাম কমানো, ফিটনেস না থাকলে সড়কে চলতে না দেয়া এবং বিআরটিএ-কে দালালমুক্ত করারও দাবি জানায় শিক্ষার্থীরা।

এদিকে হাফ পাশের দাবিতে রাজধানীর ফার্মগেটেও টানা চার ঘণ্টা বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে। সেখানেও চালকের সনদ, গাড়ির ফিটনেস যাচাই করেন ছাত্ররা। এতদিন অর্ধেক ভাড়াই দিয়ে আসছিল শিক্ষার্থীরা। হঠাৎ বাস চালক ও হেল্পাররা পুরো ভাড়াই আদায় শুরু করে। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply