সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় পার্টির মহাসমাবেশ

|

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শেষ হয়েছে জাতীয় পার্টির মহাসমাবেশ। শনিবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সমাবেশস্থলে পৌঁছান। এসময় নেতাকর্মীরা তাকে স্বাগত জানান।

এর আগে পার্টির কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ, মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দীন বাবলু, অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন খান, সালমা ইসলাম, আব্দুস সাত্তার, বিরোধী দলের চিফ হুইফ তাজুল ইসলামসহ পার্টির অন্যান্য নেতাকর্মীরা মঞ্চে আসেন।

সকাল সাড়ে দশটার দিকে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত ও জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে সমাবেশের সূচনা করা হয়। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পার্টির অবস্থান ও চলমান রাজনীতি নিয়ে গুরুত্বপূর্ন বক্তব্য রাখবেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। মহাসমাবেশে যোগ দিতে ভোর থেকেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নেতা-কর্মীরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আসতে শুরু করেন। সকাল ৯টা নাগাদ সোহরাওয়ার্দী উদ্যান জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীদের ভিড়ে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে ওঠে।

দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে সমাবেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে প্রত্যাশা নেতাকর্মীদের। জনগণের আস্থা অর্জন ও ভোটের রাজনীতিতে দলের অবস্থান শক্ত করতে মহাসমাবেশকে কাজে লাগাতে চায় জাতীয় পার্টি। সেই সাথে রাজনীতিতে জাতীয় পার্টি বড় নিয়ামক শক্তি- সেই বার্তাও দিতে চায় রাজনৈতিক দলগুলোকে জানিয়েছেন, দলটির সিনিয়র নেতারা।

এদিকে সমাবেশে অংশ নিতে সকাল থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মিছিল সহকারে প্রবেশ করছেন জাতীয় পার্টি ও সম্মিলিত জোটের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা। এসময় তারা নির্বাচনী বিভিন্ন ধরনের প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন।

সমাবেশ উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিভিন্ন ব্যানার-ফেস্টুনে সাজানো হয়েছে মাঠ ও আশপাশের এলাকা। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ছবিসংবলিত ব্যানার-পোস্টার দিয়ে সমাবেশের চারপাশ সাজানো হয়েছে। উদ্যানের ঠিক মাঝখানে উত্তরমুখী মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। প্রধান মঞ্চের কয়েক ফুট দূরেই রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মঞ্চ।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply