গাইবান্ধায় ইউপি সদস্য হত্যার দায় স্বীকার করে আসামির জবানবন্দি

|

স্থানীয় প্রতিনিধি, গাইবান্ধা:

গাইবান্ধার চাঞ্চল্যকর সদ্য-জয়ী ইউপি সদস্য আবদুর রউফ মাস্টারকে হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন হত্যা মামলার প্রধান আসামী আরিফ মিয়া (৩৫)।

সোমবার (১৫ নভেম্বর) সন্ধ্যার দিকে গাইবান্ধার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. নজরুল ইসলামের আদালতে আরিফ মিয়া এই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। এর আগে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে সদর থানা থেকে তাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) আব্দুর রউফ জানান, আদালতের বিচারক নজরুল ইসলামের খাস কামরায় দীর্ঘ সময় ধরে আসামি আরিফ ইউপি সদস্য আবদুর রউফ মাস্টারকে হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। স্বীকারোক্তিতে আসামি আরিফ মিয়া জানান, পূর্ব থেকেই পারিবারিক বিষয়ে রউফ মাস্টারের সঙ্গে তার দ্বন্দ্ব ছিল। সেই দ্বন্দ্বের জেরে ও ক্ষোভেই এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন তিনি।

আদালতে জবানবন্দি রেকর্ড শেষে আরিফ মিয়াকে জেলা কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালতের বিচারক মো. নজরুল ইসলাম। পরে পুলিশ পাহারায় আদালত থেকে আরিফ মিয়াকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ওসি আব্দুর রউফ।

এর আগে, শনিবার রাতে পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার পাঁচপীর গ্রাম থেকে আরিফ মিয়াকে গ্রেফতার করে র‍্যাব-১৩ সদস্যরা। আসামি আরিফ মিয়া লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের মাগুরের কুটি গ্রামের হায়দার মিয়ার ছেলে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার রাতে লক্ষ্মীপুর বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে আবদুর রউফ মাস্টারকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে আরিফ। পরে গুরুতর অবস্থায় তাকে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় সদর থানায় নিহতের তার বড় বোন মমতাজ বেগম বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় আরিফ মিয়াসহ অজ্ঞাত পরিচয় ৬/৭ জনকে আসামি করা হয়।

উল্লেখ্য, দ্বিতীয় ধাপের বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে সদর উপজেলার লক্ষীপুর ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের সাধারণ সদস্য (মেম্বার) পদে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন আবদুর রউফ মাস্টার। গোবিন্দপুর মাগুরাকুটি গ্রামের মৃত্যু ফজলুল হকের ছেলে আবদুর রউফ মাস্টার লক্ষ্মীপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের সহকারি শিক্ষক ছিলেন।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply