বঙ্গবন্ধুর নিজহাতে লাগানো ‘হৈমন্তি’ বাঁচাতে বিশেষজ্ঞ দল নাটোরে

|

স্টাফ রিপোর্টার, নাটোর

১৯৭২ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান উত্তরা গণভবনে এক সফরকালে তার স্ব-হস্তে একটি ‘হৈমন্তি’ গাছ রোপন করেছিলেন। গাছটির চার দিকে ঝোপ-জঙ্গল হলে তা পরিষ্কার করে গোড়া বেঁধে দেওয়া হয়। কিন্তু দীর্ঘ দিন ধরে অযত্নে অবহেলায় থাকার কারণে গাছটি মরে যাওয়ার পথে। এই অবস্থায় নাটোর জেলা প্রশাসন ইতিহাস ঐতিহ্য ধরে রাখতে গাছটি রক্ষার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করে। এরই ধারাবাহিকতায় গাছটি বাঁচাতে কর্তৃপক্ষকে জানানোর পর মঙ্গলবার বিকেলে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. নাজিরুল ইসলামের নেতৃত্বে ৮ সদস্যের একটি দল গণভবনে গাছটি পর্যবেক্ষণ করেন।

এ সময় গাছটি বাঁচাতে বেশ কয়েকটি সুপারিশমালা দিয়েছেন বিশেষজ্ঞ দলটি। প্রতিনিধি দলে রয়েছেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শাহাদৎ হোসেন, ড. কবিতা আঞ্জুমান আরা, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হর্টিকালচার বিভাগের পরিচালক কুদরতি গণি সহ অন্যান্যরা।

প্রতিনিধি দলের প্রধান বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা নাজিরুল ইসলাম বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্ব-হস্তে লাগানো গাছ অনেক ঐতিহ্য বহন করে। বর্তমানে গাছটির বয়স ৪৬ বছর হয়েছে। তাছাড়া দীর্ঘদিন ধরে গাছটি অযত্নে অবহেলায় থাকার কারণে পোকার আক্রমণে গাছটি নষ্ট হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। পুরোপুরিভাবে রিকোভারী করা সম্ভব না হলেও দীর্ঘদিন টিকিয়ে রাখতে বেশ কিছু পরামর্শ দেয়া হয়েছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply