পৃথিবীতে এসে পৌঁছালো সৌরঝড়

|

ছবি: সংগৃহীত।

সূর্য থেকে নির্গত একটি জিওম্যাগনেটিক বা ভূচৌম্বকীয় ঝড় শনিবার (৩০ অক্টোবর) রাতে এসে পৌঁছেছে পৃথিবীতে। এর প্রভাবে পৃথিবীর কিছু অঞ্চল থেকে আকাশে চমৎকার সবুজ আভা দেখা যায়, যা অরোরা বা মেরুপ্রভা হিসেবে পরিচিত।

বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) ‘এক্স১’ শ্রেণির সৌরশিখা নির্গত হয়েছে বলে ধরা পড়ে নাসার সোলার ডাইনামিকস অবজারভেটরিতে। স্পেস ডটকমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেইসাথে সৌরকণাও নির্গত হয়, যা গত রাতে পৃথিবীতে এসে পৌঁছায়। সবচেয়ে তীব্র সৌরশিখার ক্ষেত্রে ‘এক্স’ শ্রেণির উল্লেখ করে থাকে নাসা। সাথে থাকা নম্বরটি বোঝায় তীব্রতা, যেমন এক্স১-এর চেয়ে এক্স২ দ্বিগুণ শক্তির। সৌরশিখায় সূর্য থেকে শক্তিশালী তেজস্ক্রিয় বিকিরণ হয়।

বিজ্ঞানীরা এবারের সৌরঝড়কে ‘জি৩’ পর্যায়ের জিওম্যাগনেটিক বা ভূচৌম্বকীয় ঝড় হিসেবে উল্লেখ করেন, যা পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের ওপরের স্তরে আঘাত করে। এ ধরনের ঝড় জিপিএস সংকেত, স্যাটেলাইটনির্ভর যোগাযোগ এবং বিদ্যুতের গ্রিডে প্রভাব ফেলে। সেইসাথে মেরু অঞ্চলে অরোরা দৃশ্যমান হয়। উত্তর গোলার্ধে বেশি হয় বলে এমন আলোকে নর্দার্ন লাইটসও বলা হয়। দক্ষিণ মেরুতে হলে সেটাকে বলা হয় সাউদার্ন লাইটস।

যোগাযোগের অবকাঠামোতে প্রভাব ফেললেও এ ধরনের ঝড়ে মানুষের ক্ষতি হয় না। যুক্তরাষ্ট্রের স্পেস ওয়েদার প্রেডিকশন সেন্টার (এসডব্লিউপিসি) এক বিবৃতিতে জানায়, আমাদের প্রযুক্তিগত অবকাঠামোর ওপর জি৩ শ্রেণির ঝড়ের প্রভাব সচরাচর নামমাত্র হয়ে থাকে। তবে সবকিছু মিলে গেলে এ ধরনের ঝড়ে মেরু অঞ্চল থেকে অনেক দূর পর্যন্ত অরোরা দেখা যায়।

অরোরা তৈরির শর্ত হলো সূর্য থেকে তড়িতাহিত সৌরকণা এসে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের ওপরের স্তরে আঘাত করতে হবে। আর পৃথিবীর চুম্বকক্ষেত্রের প্রভাবে সৌরকণাগুলো পৌঁছে যায় দুই মেরুতে। এ কারণেই মেরু অঞ্চল থেকে অরোরা ভালো দেখা যায়। নর্দার্ন লাইটসকে অরোরা বোরেলিসও বলা হয়। অন্যদিকে সাউদার্ন লাইটস অরোরা অস্ট্রালিস হিসেবে পরিচিত।

বড় সোলার ফ্লেয়ার বা সৌরশিখার ক্ষেত্রে সূর্য থেকে শক্তিশালী তেজস্ক্রিয় বিকিরণ হয়, যার নাম ‘করোনাল মাস ইজেকশন’। এতে পৃথিবীর দিকে একসঙ্গে তীব্র গতিতে সাধারণের চেয়ে অনেক বেশি পরিমাণে তড়িতাহিত সৌরকণা ধেয়ে আসে। গত বৃহস্পতিবারে এমনটাই হয়েছে। পৃথিবীর দিকে সৌরকণাগুলো ঘণ্টায় ৩৫ লাখ কিলোমিটার বেগে ছুটে আসে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply