পিরোজপুরে নির্বাচনী প্রচারণায় হামলা, আহত ৩

|

পিরোজপুর প্রতিনিধি :

পিরোজপুরে ইউপি নির্বাচন নিয়ে দুই পক্ষের বিরোধে ৩ জন আহত হয়েছে। এদের কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করা হয়। এ সময় বাড়ি-ঘরে হামলারও অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহতদের নাজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার (৩১ অক্টোবর) পিরোজপুর সদর উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন, দূর্গাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আলতাফ হোসেনের সমর্থক, ইউপি সদস্য মেম্বার আলী আক্কাস গাজী (৫২), চুঙ্গাপাশা গ্রামের টুটুল শেখ (৪২) ও রাসেল মাঝি (২৭)।

হামলায় আহত ইউপি মেম্বার আলী আক্কাস গাজী জানান, স্বতন্ত্র প্রার্থী আলতাফ হোসেনসহ আমরা ৫-৬ কর্মী ওই দিন সকাল ১১টার দিকে ইউনিয়নের কাথুলিয়া নারিকেল বাড়ি গ্রামে প্রচারণায় যাই। এ সময় গনেশ হালদারের বাড়িতে গেলে ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও নৌকা প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী নোমান মৃধার নেতৃত্বে ১০-১২ জনের একটি দল হকিস্টিক, দা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় আত্মরক্ষার্থে গনেশ হালদারের ঘরে আশ্রয় নিলে হামলাকারীরা তার ঘরের দরজা-জানালা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে আমাদের ওপর হামলা করে।

বাড়ির মালিক গনেশ হালদার জানান, নির্বাচনী প্রচার কালে এক গ্রুপ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ধাওয়া দিলে তারা আমার ঘরে আশ্রয় নেন। এ সময় অন্য গ্রুপ ঘরের দরজা জানালা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে তাদের মারধর করে। এ সময় ঘরের টিভি , ফ্রিজসহ সকল আসবাবপত্র ও মালামাল ভাংচুর করা হয়।

নাজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাক্তার জেরিন সুলতানা জানান, আহতদের অবস্থা গুরুতর।

এ বিষয়ে আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. নোমান মৃধা জানান, তিনি বা তার কোনো লোক এই হামলার সাথে জড়িত নন। মূলত এই হামলা করেছে নৌকা প্রতীকের লোকজন। নির্বাচনের মূল প্রতিদ্বন্দ্বীতা আমার (নোমান মৃধা) সাথে হওয়ায় আমার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করে হয়রানির চেষ্টা চলছে।

এ ব্যাপারে পিরোজপুর সদর থানার অফিসার ইন চার্জ (ওসি) আ.জ.ম মাসুদুজ্জামান জানান, দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ওই সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ৩ জন আহত হয়। এ ঘটনায় রাব্বি হোসেন নামের একজনকে আটক করা হয়েছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply