ইংল্যান্ডের চেয়ে যেখানে পিছিয়ে বাংলাদেশ

|

পরিকল্পনা আর বিশ্লেষণের ঘাটতিতেই পিছিয়ে বাংলাদেশ। ছবি: সংগৃহীত

ইংল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটের পরাজয়; শুনেই বলে দেয়া যায় বাংলাদেশকে পাত্তাই দেয়নি ইংল্যান্ড। কিন্তু কেন এমন ভরাডুবি? কীভাবে এত এগিয়ে ইংল্যান্ড? এই প্রশ্নের সোজা উত্তর হল, ইংলিশরা সঠিক পরিকল্পনা করে এবং বাংলাদেশ করে না। পরিকল্পনা আর বিশ্লেষণের ঘাটতিতেই ইংল্যান্ডের চেয়ে পিছিয়ে বাংলাদেশ।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোনো একটি ম্যাচ খেলার আগে প্রতিপক্ষ দল, সেই দলের খেলোয়াড় কিংবা যে ভেন্যুতে খেলা হচ্ছে সেই সম্পর্কে বিশ্লেষণ করে সাজানো হয় পরিকল্পনা। কিন্তু আদৌ কি টাইগারদের ক্ষেত্রে এমনটা হচ্ছে? কোনো পরিকল্পনা কি ছিল টাইগারদের? হ্যাঁ-বোধক উত্তর দেয়াটা কষ্টসাধ্যই হয়ে যাচ্ছে। কারণ, ইংল্যান্ডের সাথে হারা ম্যাচে টাইগারদের সেই পরিকল্পনার অভাব টের পাওয়া গেছে স্পষ্ট। ইংলিশ বোলারদের ফাঁদে যেমন পা দিয়েছে ব্যাটাররা, তেমনি বোলিংয়েও ছিল না কোনো পরিকল্পনার ছাপ।

টি-টোয়েন্টিতে ২০১৬ সালের পর থেকে পাওয়ার প্লেতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সব থেকে বেশি উইকেট নিয়েছেন ডানহাতি পেসাররা। ডানহাতি পেসারদের বিরুদ্ধে ইংলিশ টপ অর্ডারের ডিসমিসাল রেট ২৬.৫। অথচ এই ইংল্যান্ডের সাথে ম্যাচে বাংলাদেশের একাদশে নেই কোনো ডানহাতি পেসার। স্কোয়াডের রুবেল বা তাসকিনের সেরা সুযোগ হতে পারতো এই ম্যাচেই।

বাঁহাতি স্পিনে এই ম্যাচের আগে জেসন রয়ের গড় ছিল ২৬.২। এই জায়গায় একটা কিন্তু আছে। যখন বাঁহাতি স্পিনাররা তাকে ৯০ কিমি/ঘণ্টা বা তার বেশি গতিতে বল করেছেন সেসব বলে তার স্ট্রাইক রেট ১২১; কিন্তু এর নিচে তার স্ট্রাইক রেট ১৭৭। তার বিরুদ্ধে সাকিব কিংবা নাসুম ৯০+ কিমি/ঘণ্টায় বল করেছেন খুবই কম।

ম্যাচের মাঝ বিরতির ইন্টারভিউতে ক্রিস ওকস বলেছিলেন, আবুধাবির এই উইকেটের ধরন অনুযায়ী ব্যাক অফ দ্য লেংথে বল করতে হয়। তারা করেছেনও তাই। প্রায় ৫৩ শতাংশ বল ইংল্যান্ডের পেসাররা করেছেন ব্যাক অফ দ্য লেংথ এবং শর্ট লেংথে; মাত্র ১৮ শতাংশ বল করেছেন ফুল লেংথে। অন্যদিকে, পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশের পেসাররা ১৮ শতাংশ বল করেছেন ব্যাক অফ লেংথে, ৪৪ শতাংশ ফুল লেন্থে। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, পাওয়ার প্লেতে স্ট্যাম্প হাইটের উপরের কোনো বলেই বাউন্ডারি বা ওভার বাউন্ডারি মারতে পারেনি ইংল্যান্ড। যা বাউন্ডারি মেরেছে সব ফুল এবং স্ট্যাম্প হাইটে থাকা বলে।

মূল ড্যামেজ যেখানে সেই ব্যাটিং এর ক্ষেত্রে লিটন, নাঈমকে পরিকল্পনার ফাঁদে আউট করা, মুশফিককে উইকেটে বল রেখে রিভার্স সুইপ বা স্কুপ খেলতে বাধ্য করানো, এগুলো সবই ইংল্যান্ডের পরিকল্পনার সফল বাস্তবায়ন। যেই পরিকল্পনা বা অ্যানালিসিসের ধারেকাছেও ছিল না বাংলাদেশ।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply