ধর্মীয় পরিচয় লুকিয়ে এনসিবিতে চাকরি! সমীরের বিয়ের ছবি নিয়ে তোলপাড়

|

ছবি: সংগৃহীত।

ভারতের মাদক নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থার (এনসিবি) তদন্তকারী কর্মকর্তা সমীর ওয়াংখেড়েকে নিয়ে একের পর এক বিস্ফোরক অভিযোগ সামনে আসছে। শাহরুখপুত্র আরিয়ানকে গ্রেফতারের পর তাকে নিয়ে উঠছে বিভিন্ন প্রশ্ন। তবে এবারে এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠলো, তাতে এনসিবি দফতরে তার চাকরির বৈধতা নিয়িই উঠেছে জোর প্রশ্ন। খবর ইন্ডিয়া টুডের।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) সকালে নিজের ভেরিফায়েড টুইটার অ্যাকাউন্টে একটি ছবি পোস্ট করেন মহারাষ্ট্রের উন্নয়নমন্ত্রী ও ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টির (এনসিপি) নেতা নবাব মালিক। ছবির ক্যাপশনে তিনি লেখেন, ‘এক মিষ্টি দম্পতির ছবি। সমীর দাউদ ওয়াংখেড়ে এবং চিকিৎসক শাবানা কুরেশি’।

খুব সাধারণ একটি বিয়ের ছবি হলেও এই ছবি নিয়িই ভারতজুড়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়। ছবিটিতে মুসলিম রীতিতে সমীরের ‘নিকাহ’ করার একটি দৃশ্য দেখা যাচ্ছে। তবে নবাব মালিকের দাবি, ‘প্রান্তিক হিন্দু’ পরিচয় দিয়ে এনসিবিতে চাকরি নিয়েছেন সমীর।

২০০৬ সালের ওই ছবিতে সমীরকে একজন অল্পবয়সী যুবক হিসেবে দেখা যাচ্ছে। বিয়ের দিন প্রথম স্ত্রী শাবানাকে নিয়ে ছবিটি তুলিয়েছিলেন তিনি। ওই ছবি এবং তারপরে সমীরের মুসলিম মতে বিয়ের শংসাপত্র বা নিকাহনামা প্রকাশ করে নবাব জানিয়েছেন, সমীরের ধর্ম নিয়ে তার কোনো আপত্তি নেই। তিনি শুধু চোখে আঙুল দিয়ে দেখাতে চান, সমীর একজন অসৎ ব্যক্তি। যিনি চাকরির প্রয়োজনে খাতায় কলমে নিজের ধর্ম কিংবা জাতি বদলে ফেলতেও দ্বিধাবোধ করেননি।

এই মন্ত্রী আরও জানান, এনসিবির রেকর্ডে সমীরের বাবার নাম দ্যানদেব ওয়াংখেড়ে লেখা থাকলেও আসলে তার নাম দাউদ। নবাবের দাবি অবশ্য তখন অস্বীকার করেছিলেন সমীরের বাবা। বুধবার সকালে ছবিটি প্রকাশ করার পর অবশ্য তাদের প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।

এর আগে, এক সাক্ষাৎকারে সমীরের চাকরি খোয়া যাবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন নবাব। এবারে পুরোদমে লেগে পড়েছেন সেই কাজেই।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply