পাকিস্তানের কাছে হারার পর পাঞ্জাবে কাশ্মিরের ছাত্রদের ওপর হামলা

|

ছবি: প্রতীকী

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে হারার পর পাঞ্জাবের দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কাশ্মিরের ছাত্রদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

কাশ্মিরের ছাত্রদের অভিযোগ, খেলায় পাকিস্তান জেতার পর তাদের ওপর চড়াও হন একদল হামলাকারী। তাদের হোস্টেলে ঢুকে বেধড়ক মারধর করারও অভিযোগ ওঠে। পাঞ্জাবের ভাই গুরুদাস ইনস্টিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি ও রায়ত ভারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

জম্মু কাশ্মির ছাত্র সংগঠনের মুখপাত্র জানিয়েছেন, পাঞ্জাবের সঙ্গুর ও মোহালি জেলার দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাশ্মিরের ছাত্ররা ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের পর আক্রান্ত হয়েছেন। হামলার হাত থেকে স্থানীয় মানুষেরা তাদের উদ্ধার করেছেন। মূলত উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা ও বিহারের ছাত্ররা রোববার রাতে আক্রমণ চালায়। কাশ্মিরের ছাত্রদের হোস্টেলে প্রবেশ করে ভাঙচুর চালানো হয়।

এই নিয়ে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন আক্রান্ত ছাত্ররা। তারা দাবি করেন, নিরাপত্তারক্ষীরা হোস্টেলে হামলাকারীদের ঢুকতে দেয়। তারপর মূলত উত্তরপ্রদেশের ছাত্রদের নেতৃত্বে হামলাকারীরা হোস্টেলে ঢুকে তাণ্ডব চালান। পরে পাঞ্জাব পুলিশের একটি দল এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। একই ঘটনা ঘটেছে মোহালির একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও। সেখানেও চার কাশ্মিরের ছাত্র আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

আরও পড়ুন: হারের পর শামিকে ‘পাকিস্তানি’ বলে গালি ভারতীয় সমর্থকদের

সঙ্গুরের এক পুলিশ কর্মকর্তা ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ সম্পর্কে জানিয়েছেন, ওই প্রতিষ্ঠানটিতে মোট ৯০ জন কাশ্মিরের ছাত্র রয়েছেন, আর ৩০ জনের মতো ছাত্র বিহার ও উত্তরপ্রদেশের। মোট দু’টি হোস্টেলে কাশ্মিরের ছাত্ররা থাকেন। অভিযোগ উঠেছে, পাকিস্তান যখন রান করছিল, কাশ্মিরের ছাত্ররা উল্লাস করছিলেন। তারা ‘আজাদি’ স্লোগানও তুলেছিলেন।

যদিও সোমবার সকালে পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার জন্য দু’পক্ষই ক্ষমা চেয়ে মিটমাট করে নিয়েছে।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply