প্রেমিকের জিহ্বা কেটে নেয়া সেই প্রেমিকার জামিন

|

ছবি: সংগৃহীত

সাভার প্রতিনিধি:

ধামরাইয়ে প্রেমিকের জিহ্বা কাটার অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া শারমিন আক্তারসহ আরও ৩ জনের জামিন দিয়েছে আদালত। তবে জামিন পাননি তার বাবা।

রোববার (২৪ অক্টোবর) ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শাহজাদী তাহমিদা তাদের জামিন মঞ্জুর করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) তন্ময় সাহা গ্রেফতারকৃত চারজনকে আদালতে হাজির করে শফিকুল ইসলামের পাঁচ দিনের রিমান্ড ও বাকিদের কারাগারে পাঠানোর আবেদন করেন।

পরে আদালত প্রেমিকা শারমিন, তার মা আনোয়ারা বেগম ও ভাই ফারুক হোসেনের জামিন মঞ্জুর করেন। তবে ওই তরুণীর বাবা শফিকুল ইসলামের রিমান্ড ও জামিন নামঞ্জুরের আদেশ দেন।

এর আগে, গত শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকার ধামরাই উপজেলার রোয়াইল ইউনিয়নের ফড়িঙ্গা গ্রামে প্রেমিকের জিহ্বা কেটে রাখার অভিযোগ ওঠে শারমিনের বিরুদ্ধে। আহত প্রেমিক সাইফুর ইসলাম একই এলাকার রহমত আলীর ছেলে। শারমিন আক্তার বিদেশে ছিল। দুই মাস আগে তিনি দেশে এসেছেন। বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার সঙ্গে সাইফুল শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। কিন্তু বিয়ে না করে দিনের পর দিন সময়ক্ষেপণ করতে থাকলে প্রেমিকা শারমিন ক্ষিপ্ত হয়ে জিহ্বা কেটে দেয়।

পরে প্রেমিকার পিতা শফিকুল ইসলাম, মা পানকা বেগম, ভাই ফারুক হোসেন ও নানা সোরহাব হোসেন মিলে প্রেমিক সাইফুল ইসলামকে বেধড়ক মারধর করে। একপর্যায়ে সাইফুল নিস্তেজ হয়ে পড়লে মৃত ভেবে তারা তাকে ঘরের মেঝেতে ফেলে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যান। পরে স্থানীয় লোকজন সাইফুলকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply