দৃশ্যমান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলসেতুর অবয়ব

|

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:

পদ্মা সেতুর পর দেশের আরেক বৃহৎ প্রকল্প বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু নির্মাণ কাজ এখন এগিয়ে চলেছে। করোনা কালেও থেমে নেই এই এই রেল সেতুর নির্মাণ কাজ। টুং টাং শব্দে প্রমত্তা যমুনার বুকে স্বপ্নের সেতুর একটির পর একটি পিলারের পাইলিং কাজ এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি পিলারের পাইলিং কাজ শেষ হয়েছে। প্রতিনিয়তই একটু একটু করে ফুটে উঠছে সেতুর অবয়ব। দিনরাত সমান তালে চলছে এই সেতু নির্মাণের মহাযজ্ঞ। দেশের কোটি কোটি মানুষের স্বপ্ন এখন বাস্তবে রুপ লাভ করছে। এই রেলসেতুটি নির্মাণ হলে একদিকে যেমন উত্তরের যোগাযোগ খাতে নব দিগন্তের সূচনা হবে। অন্যদিকে খুলবে অপার অর্থনৈতিক সম্ভাবনার দ্বার।

দেশের মেগা প্রকল্পগুলোর মধ্যে অন্যতম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু। যেটির বাস্তবায়ন এখন দৃশ্যমান। বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুর ৩শ মিটার উজানে সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইলে সেতুর দুই প্রান্তেই দিনরাত চলছে নির্মাণ কাজ। ৪.৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ ডুয়েল গেজ ডাবল ট্র্যাকসহ এ রেল সেতুর মোট ৫০টি পিয়ারের মধ্যে ইতোমধ্যে ৪২ নং থেকে ৪৯ নং (৮টি) পিয়ারের পাইলিং কাজ শেষ হয়েছে। চলছে আরও বেশ কয়েকটি পিয়ারের পাইলিং কাজ। জাপানের অর্থায়ন ও তাদের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এ সেতু নির্মাণে কাজ করছে।

রেল সেতুটি বাস্তাবায়িত হলে বিদেশ থেকে দেশে আসা মালবাহী ট্রেন সরাসরি চলাচল করতে পারবে। এতে আমদানি রফতানি খরচ কমে যাওয়াসহ বঙ্গবন্ধু সেতু ও মহাসড়কের ওপর চাপ কমবে। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু সেতুর ওপর দিয়ে সমান্তরালভাবে গাড়ি ও রেল চলছে, যা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এটি নির্মিত হলে বঙ্গবন্ধু সেতুর ঝুঁকিও হ্রাস পাবে। একই সঙ্গে উত্তরবঙ্গ থেকে পণ্য পরিবহনব্যবস্থা সহজ হবে, কমবে পণ্য পরিবহন খরচ যা এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ও সামাজিক জীবনযাত্রায় ইতিবাচক পরিবর্তন আনবে।

সেতুটি দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে বলে মনে করে সরকার। রেল বিভাগের তথ্য মতে ডুয়েল গেজ ডাবল-ট্র্যাকের এ সেতুটি হবে দেশের সবচেয়ে বড় রেলসেতু। এটি রাজধানীর সঙ্গে দেশের উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চলের রেল যোগাযোগব্যবস্থা আরও সহজ ও উন্নত করবে। এছাড়া ট্রেন শিডিউল বিপর্যয় কমাতেও এ সেতু সহায়তা করবে বলে জানিয়েছে রেল বিভাগ।

বঙ্গবন্ধু সেতু ও রেল সেতুর পশ্চিমেই গড়ে উঠছে সিরাজগঞ্জ ইকোনমিক জোন ও বিসিক শিল্প পার্ক। এখানে উত্তরজনপদের ৭ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে। ইতোমধ্যে এসব অঞ্চলে শিল্প কারখানা স্থাপনে আগ্রহ দেখিয়েছে দেশি বিদেশি শিল্প উদ্যাক্তোরা। বঙ্গবন্ধু রেলসেতু নির্মাণ হলে এই শিল্পাঞ্চল থেকে রেলপথ,সড়ক পথ,স্থল পথ ব্যবহার করে বিশ্বের যে কোনো দেশে পণ্য পরিবহন সহজ হবে। একই সাথে উত্তর জনপদের উৎপাদিত পণ্যসামগ্রী পরিবহনও সহজ হবে মনে মনে করছেন ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা। এতে এ জনপদের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের অপার সম্ভাবনা দেখছেন তারা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর প্রকল্প পরিচালক আল ফাত্তাহ মো. মাসুদুর রহমান যমুনা নিউজকে বলেন, বর্তমানে বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে ৩৮টি ট্রেন চলাচল করে। নতুন রেলসেতু নির্মাণ হলে ডাবল লাইনে দ্রুত গতিতে মালবাহী সহ ৬৮টি ট্রেন চলাচল করার পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের সাথে ট্রেন চলাচলের আন্তঃ সংযোগ সৃষ্টি হবে। তিনি জানান, ইতোমধ্যে এ রেল সেতুর ৩৩ শতাংশ কাজ বাস্তবায়িত হয়েছে। আমরা দ্রুত গতিতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। ২০২০ সালে ২৯ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৬ হাজার ৭শ ৮০ কোটি টাকা ব্যায়ে এ সেতুটির নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেছেন। ২০২৪ সালের মধ্যে এ সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হবে বলে আশা করছেন তিনি।

সিরাজগঞ্জ রেল বাঁচাও আন্দোলনের আহব্বায়ক নব কুমার কর্মকার যমুনা নিউজকে বলেন, আমাদের এই জেলাটি এক সময় রেলের শহর হিসেবে খ্যাত ছিলো। কিন্তু বঙ্গবন্ধু সেতু হওয়ার পর শহরের বাইরে দিয়ে রেল যোগাযোগ শুরু হয়। এতে শহরের সাথে রেলের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। আমাদের অনেক আন্দোলনের ফলে শহর থেকে একটি ট্রেন চালু হয় রাজধানীর সাথে। এই রেল সেতুটি চালু হলে সিরাজগঞ্জের সাথে বগুড়া, রংপুর, দিনাজপুর রেল সংযোগ শুরু হবে। আর এতে উত্তরবঙ্গে নতুন দিগন্ত শুরু হবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুটি ওই এলাকার জন্য আশির্বাদ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply