অসময়ে তিস্তায় ভাসলো লাখো মানুষ

|

অসময়ে তিস্তার পানি ভাসালো অববাহিকার নীলফামারী, লালমনিরহাট, রংপুর, কুড়িগ্রাম ও গাইবান্ধার ১৫ উপজেলার শতাধিক ইউনিয়নের লাখ খানেক মানুষকে। ১৮ ঘণ্টার পানি বৃদ্ধিতে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে উঠতি আমন, সদ্য লাগানো আলু, কুমড়ার ক্ষেতসহ বিভিন্ন শাকসবজির আবাদ। বিভিন্ন গ্রোয়েন বাঁধ, সংযোগ সড়ক আর রাস্তাঘাট ভেঙে হয়ে গেছে তছনছ।

কিছু বুঝে ওঠার আগেই বুধবার (২০ অক্টোবর) সকাল থেকে বাড়তে থাকে তিস্তার পানি। ভেসে যায় ঘর-বাড়ি। কোনোরকমে নিরাপদ আশ্রয়ে গিয়ে ওঠেন রংপুরের গঙ্গাচড়ার হাজারও মানুষ।

আসময়ের প্লাবন ভাসিয়ে দিয়েছে মাঠে কেটে রাখা ধানও। তলিয়ে যায় আলু-কুমড়ার ক্ষেত, ভেসে গেছে মাছের পুকুরও। ঘটনা বেগতিক দেখে লক্ষিটারীর ইচলি এলাকায় উদ্ধার তৎপরতা চালায় সেনাবাহিনী। ভেঙে যায় ইচলিসহ বেশ কিছু সড়ক। ধসে যায় শেখ হাসিনা তিস্তা সড়ক সেতুর সংযোগ সড়কের প্রায় দেড়শ মিটার অংশ। রাতভর প্লাবিত এলাকা ঘুরে দ্যাখেন স্থানীয় সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা।

পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, প্লাবনের কারণ উজানের ঢল। এতে শুধু গঙ্গাচড়াতেই শুটিবাড়ি, কালিগঞ্জসহ কয়েকটি এলাকার ৯টি বাঁধের প্রায় হাজার মিটার অংশ ধসে গেছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply