বোলিং-ফিল্ডিংয়েও উজ্জীবিত বাংলাদেশ

|

ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ১৮২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ধুঁকছে পাপুয়া নিউগিনি। ৪ ওভারেই হারিয়ে ফেলেছে তারা ৪ উইকেট। ব্যাটিংয়ের পর বোলিং ও ফিল্ডিংয়েও উজ্জীবিত বাংলাদেশের সামনে দাঁড়াতেই পারছে না প্রথম বারের মতো কোনো টেস্ট প্লেয়িং দেশের বিরুদ্ধে খেলতে নামা পিএনজি।

প্রথমে ওপেনার লেগা সিয়াকার অফফর্মকে দীর্ঘায়িত করে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন সাইফুদ্দিন। তারপর তাসকিন আহমেদের বলে উইকেটের পেছনে দুর্দান্ত ক্যাচে পিএনজি অধিনায়ক আসাদ ভালাকে ফেরান নুরুল হাসান সোহান। দেশসেরা এই উইকেটকিপার তার ক্যাচিং দক্ষতার প্রমাণ দিয়ে চলেছেন প্রতি ম্যাচেই। এর সাথে ছিল তাসকিনের একের পর এক আগুনে গোলা। নিয়মিত ঘণ্টায় ৯০ মাইলে বল করে পিএনজি ব্যাটারদের টেকনিকের পরীক্ষা নিয়ে যাচ্ছে এই ফাস্ট বোলার।

তারপর বোলিংয়ে এসেই সাকিব আল হাসান ফিরিয়ে দেন চার্লস অ্যামিনিকে; বাউন্ডারি লাইনে যার দুর্দান্ত ক্যাচেই ফিফটি হাতছাড়া হয়েছিল আজ চমৎকার ব্যাট করতে থাকা সাকিবের। অবশ্য এখানে বলতে হয় মোহাম্মদ নাইমের কথা। তার ডাইভিং ক্যাচ নিঃসন্দেহে ম্যাচের সেরা ক্যাচ হবার দৌড়ে অবতীর্ণ হবে অ্যামিনির ক্যাচের সাথে।

এক বল বিরতি দিয়ে আবার আঘাত হানেন সাকিব। এই অলরাউন্ডারকে তুলে মারতে গিয়ে মেহেদি হাসানের সহজ ক্যাচে পরিণত হন সিমন আতাই। উজ্জীবিত টাইগারদের সামনে কিছুটা যেন অসহায়ই পাপুয়া নিউগিনি। প্রতিবেদনটি লেখার সময় পিএনজির সংগ্রহ ৭ ওভারে ৪ উইকেট হারইয়ে ২১ রান। জয় এখন তাদের চেয়ে অনেক দূরে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply