এক বছরেও পুরোপুরি চালু করা যায়নি মিরপুর লালকুঠি হাসপাতাল

|

উদ্বোধনের এক বছর পরও জনবলের অভাবে পুরোদমে চালু হয়নি মিরপুর লালকুঠি হাসপাতাল। ৫৫ জন চিকিৎসক পদের মধ্যে আছেন ২৫ জন। ৬৬ জন নার্সের কোটা আছে, কিন্তু নার্স নেই একজনও। হাসপাতালের স্টাফদের বেলায়ও একই চিত্র। পরিচালক জানান, জনবল পেলে সম্পূর্ণ হাসপাতালটি ডিজিটাল ব্যবস্থাপনার মডেল হতে পারে।

বছরখানেক আগে চালু হয় মিরপুর লালকুঠি হাসপাতাল। মা ও শিশু সেবায় যোগ হয় নতুন ঠিকানা। আশপাশের মানুষের কাছে যা আশার খবর। হাসপাতালটির অন্যতম বৈশিষ্ট হলো অটোমোশন ব্যবস্থা। সরকারি হাসপাতাল হলেও পেসক্রিপশন, পরীক্ষা, ফ্রি ঔষধ সবই হয় ডিজিটাল প্রক্রিয়ায়। প্রত্যেকের চিপ সম্বলিত আলাদা কার্ড ও নম্বর অনুযায়ী সব তথ্য জমা থাকছে মূল সার্ভারে। এর ফলে অনিয়মের আশঙ্কা অনেকটাই কমেছে বলে দাবি পরিচালক ডা. মো. শামছুল করিমের।

সুযোগ সুবিধা থাকলেও হাসপাতালটি পুরোদমে চালু হয়নি। ২০০ শয্যার হাসপাতালে চিকিৎসকের কোঠা ৫৫টি হলেও দায়িত্বরত আছেন ২৫ জন। নার্সের পদ ৬৬ জনের, বাস্তবে একজনও নেই। ফলে আউটডোরের রোগী থাকলেও ভর্তির তালিকায় হাতে গোনা কয়েকজন। তবে পরিচালক জানালেন, তারা হাসপাতালটি পুরোপুরি চালু করার চেষ্টা করছেন।

স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার পরিকল্পনা সচিব আলী নূর জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ মোকাবেলা জনবল ঘাটতির কারণ। শীঘ্রই এটি কেটে যাবে। দ্রুত লোকবল নিয়োগের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে বলেও জানালেন তিনি।

২০২০ সালের ডিসেম্বরের হাসপাতালটি উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু হয় ২০১৯ সালে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply