ছাত্রলীগের ক্রমাগত সংঘর্ষে বিপাকে সাধারণ শিক্ষার্থীরা

|

দীর্ঘ দেড় বছর বন্ধের ক্যাম্পাস পর খুললেও শঙ্কা কাটেনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের। আবাসিক ছাত্রাবাস খুলতে না খুলতেই আগেই গত শুক্রবার সংঘর্ষে জড়ায় ছাত্রলীগের দু’পক্ষ। আর এ কারণে চাপা আতঙ্ক সবার মাঝে। ক্যাম্পাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ১২ জন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কারের পাশাপাশি কঠোর বার্তা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

শুক্রবারের (২৪ অক্টোবর) সংঘর্ষের জের চলতে থাকে চার দিন ধরে। রোববার শাহ আমানত হলে আবার সংঘাতে আহত হয় বেশ কয়েকজন।

করোনার কারণে প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে সশরীরে ক্লাস, তার আগে খুলে দেয়া হয়েছে ছাত্রাবাস। কিন্তু খুলতে না খুলতেই সংঘাতে আতংকিত শিক্ষার্থীরা। এমনিতেই দীর্ঘ বন্ধের কারণে সেশনজটের শঙ্কায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা। তার ওপর এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষাজীবন নিয়ে আরও চিন্তিত তারা।

ছাত্রাবাস এবং ক্যাম্পাসের নিয়ন্ত্রণ নিতে মরিয়া ছাত্রলীগের দুটি গ্রুপ গত এক সপ্তাহে ৪ বার সংঘর্ষে জড়িয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর রবিউল হাসান ভুঁইয়া জানালেন, ভিডিও ফুটেজ দেখে চিহ্নিত দুই গ্রুপের ১২ জনকে সাময়িক বহিস্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২৭ হাজার।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply