আলুর ক্রমাগত দরপতনে কৃষকের মাথায় হাত

|

ক্রমাগত দরপতনে হতাশ হয়ে পড়েছেন উত্তরের আলু চাষি ও ব্যবসায়ীরা। বর্তমান বাজার দরে ফলন বিক্রি করে বিনিয়োগের অর্ধেকও উঠছে না। ফলে এখনও হিমাগারে পড়ে আছে সংরক্ষণের সিংহভাগ আলু। উৎপাদন ও সংরক্ষণের পর বড় লোকসানের মুখোমুখি কৃষকরা। মাত্র ১ মাসের ব্যবধানেই কেজি প্রতি আলুর দর কেমেছে ৭ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত।

নওগাঁয় হিমাগারের সামনে ফলন নিয়ে দীর্ঘ অপেক্ষায় থাকলেও দেখা মিলছে না ক্রেতার। চাষিরা বলছেন, বর্তমান দরে আলু বেচে উঠছে না খরচের অর্ধেকও। দরপতনে হতাশ ব্যবসায়ীরাও। মওসুমের শেষ, অথচ হিমাগারগুলোতে এখনও পড়ে আছে ৭০ ভাগ আলু। মন্দা বাজারে নিঃস্ব হচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, চলতি মওসুমে দেশে আলু উৎপাদন হয়েছে প্রায় এক কোটি ১৫ লাখ মেট্রিক টন। উদ্বৃত্ত প্রায় ৩০ লাখ টন। তাই প্রক্রিয়াজাত শিল্পই এখন ভরসা। সরকার সহযোগিতা করলে এই হতাশা কেটে যাবে বলছেন উদ্যোক্তারা।

সবজি হিসেবে দেশে আলুর চাহিদা মাত্র ২৫ লাখ টন। তাই কৃষকের লাভ-লোকসান নির্ভর করে বহুমুখী ব্যবহার ও রফতানির ওপর।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply