রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ ইমরান খানের বিরুদ্ধে

|

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ছবি: সংগৃহীত

অন্য দেশের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানদের কাছ থেকে পাওয়া উপহারসামগ্রী বিক্রি করে দেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এর মধ্যে একটি অতি মূল্যবান ঘড়িও বিক্রি করে দেন তিনি, যার মূল্য ১ মিলিয়ন ডলার। আজ বুধবার (২০ অক্টোবর) এমনই অভিযোগ করেছে পাকিস্তানের বেশ কয়েকটি বিরোধী দল।  

হিন্দুস্থান টাইমসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাষ্ট্রীয় সফরকালে সংবিধানসম্মত পদে অধিষ্ঠিত রাষ্ট্রপ্রধান বা কর্মকর্তাদের মধ্যে নিয়মিতভাবে উপহার বিনিময় হয়ে থাকে। গিফট ডিপোজিটরি (তোশাখানা) নিয়ম অনুসারে, এ উপহারগুলো খোলা নিলামে বিক্রি না হওয়া পর্যন্ত রাষ্ট্রের সম্পত্তি হিসাবে বিবেচিত হয়। 

পিএমএল-এন-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট মরিয়ম নওয়াজ উর্দুতে করা টুইটে লেখেন, ইমরান খান অন্যান্য দেশ থেকে পাওয়া উপহার বিক্রি করেছেন। খলিফা হযরত ওমর (রা.) তার জামা এবং পোশাকের জন্য দায়বদ্ধ ছিলেন এবং অন্যদিকে আপনি (ইমরান খান) তোশাখানা থেকে বিদেশি উপহার লুটে নেন। অথচ আপনি মদিনা সনদ অনুযায়ী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার কথা বলেন! একজন ব্যক্তি কিভাবে এতটা অসংবেদনশীল, বধির, বোবা এবং অন্ধ হতে পারে।

বিরোধী জোট পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট (পিডিএম) সভাপতি মাওলানা ফজলুর রেহমান বলেছেন, এমন খবর রয়েছে যে প্রধানমন্ত্রী খান একজন রাজপুত্রের কাছ থেকে পাওয়া একটি মূল্যবান ঘড়ি বিক্রি করেছেন।

পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) পাঞ্জাবের সভাপতি রানা সানাউল্লাহ এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অন্যান্য দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের কাছ থেকে পাওয়া উপহার বিক্রির অভিযোগে পাকিস্তানের মানহানি হয়েছে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply