সাম্প্রদায়িক সহিংসতা রোধে ঢাবি শিক্ষার্থীদের কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

|

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ‘সাধারণ শিক্ষার্থীবৃন্দ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ এর মুখপাত্র জয়দীপ দত্ত।

দেশের কোথাও আবারও সাম্প্রদায়িক সহিংসতার সম্ভাবনা সৃষ্টি হলে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

আজ বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়েন ‘সাধারণ শিক্ষার্থীবৃন্দ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ ব্যানারের মুখপাত্র ও জগন্নাথ হল সংসদের সাবেক সাহিত্য সম্পাদক জয়দীপ দত্ত।

এর আগের সাত দফা দাবিকে তিন দফায় রূপান্তর করা হয়েছে বলে জানান জয়দীপ। দাবিগুলো হলো- সাম্প্রদায়িক সহিংসতার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে সহিংসতায় জড়িতদের বিচার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, ক্ষতিগ্রস্ত মন্দির-বাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের সংস্কারে প্রয়োজনীয় ক্ষতিপূরণসহ হামলায় আহত-নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকেও পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ দেয়া, এবং দেশে একটি সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয় ও কমিশন গঠন, ও এর জন্য জাতীয় বাজেটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ নিশ্চিত করা।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জগন্নাথ হলের ছাত্র প্রণব শর্মা, নীল অনির্বাণ, সুব্রত বিশ্বাস, শিপন সূত্রধরসহ প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে জয়দীপ দত্ত বলেন, শাহবাগে আমরা আলটিমেটাম দিয়েছিলাম যে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ব্যবস্থা না নেয়া হলে আমরা কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করবো। কিন্তু ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আহত ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর জন্য প্রয়োজনীয় সাহায্য দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। পাশাপাশি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকেও দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিবৃতিও দিয়েছেন। সাম্প্রদায়িক সংঘাতে লিপ্ত অনেক দুর্বৃত্তকেই গ্রেফতারও করা হয়েছে এর মধ্যেই। এজন্য আমরা অবরোধ কর্মসূচি স্থগিত করি। যেহেতু সরকারের পক্ষ থেকে পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে, তাই আমরা আর কোনো বিশৃঙ্খলা চাচ্ছি না। এটা আমাদের যৌক্তিক দাবি ও অধিকারের প্রশ্ন। সংবাদ সম্মেলনেও আমরা আমদের যৌক্তিক দাবিগুলোই জানিয়েছি সরকারকে।

জয়দীপ দত্ত আরও বলেন, আমরা আশাবাদি তবে কোনো আত্মতুষ্টিতে ভুগতে রাজি নই৷ সরকারের পক্ষ থেকে যদি কোনো পদক্ষেপ না নেয়া হয়, তাহলে পরে আমরা আমাদের কর্মসূচি জানিয়ে দেব। তবে যেহেতু সরকার এরমধ্যেই ব্যবস্থা নিয়েছে তাই আমরা আশাবাদী। আর বাকি যে দাবি, সেগুলো পূরণ হওয়া একটু সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। এগুলোর ব্যাপারেও আমরা আলোচনা করবো সরকারের বিভিন্ন মহলের সাথে।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply