‘গ্রাহকদের টাকা বিদেশে পাচার করেছে ইভ্যালি’

|

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠাস ই-ভ্যালির সম্পদ আছে মাত্র ১০০ কোটি টাকা। আর গ্রাহকের দায়ের পরিমাণ প্রায় ৫০০ কোটি। সংকটকালীন এই অবস্থা থেকে উত্তরণে বোর্ড গঠন করে দিয়েছে হাইকোর্ট। বোর্ডের প্রধানের দায়িত্ব পেয়েছেন সাবেক বিচারপতি বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক। গ্রাহকদের কাছ থেকে নেয়া এসব অর্থ বেশিরভাগই বিদেশে পাচার করা হয়েছে বলে মনে করছেন তিনি।

ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের জন্য প্রথমে কী করতে চান, এমন প্রশ্নের জবাবে বোর্ড সভাপতি জানান, প্রথমে গ্রাহকের পাওনা এবং সস্পদের পরিমাণ তালিকা করা হবে, পরে বের করা হবে দায় দেনা। প্রয়োজনে বিদেশে পাচারকৃত অর্থ উদ্ধারে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহায়তা চাওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

এছাড়া গ্রাহকদের স্বার্থ সুরক্ষা করা হবে। আগামী সোমবার (১৮ অক্টোবর) হবে কমিটির প্রথম বৈঠক। বৈঠকে বিদেশে পাচারকৃত অর্থ দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারটিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করা হবে। প্রয়োজন হলে ইভ্যালির শীর্ষ কর্তকর্তাদের কাছে জানতে চাওয়া হবে, অর্থের গন্তব্য। তবে বোর্ডের কর্মকালীন সময়ে খোলা থাকবে ইভ্যালি অফিস।

আর কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, ক্যাব বলছে, গ্রাহকদের অর্থ ফিরিয়ে দিতে নানামুখী কর্মপন্থা হাতে নিতে হবে।

প্রসঙ্গত, ইভ্যালি পরিচালনায় ৫ সদস্যের বোর্ড গঠন করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। ১৮ অক্টোবর বিচারপতি খুরশীদ আলম সরকারের ভার্চুয়াল একক বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

বোর্ডের সদস্যরা হলেন, সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, সাবেক সচিব মোহাম্মদ রেজাউল আহসান, মাহবুবুল কবীর, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট ফখরুদ্দিন আহম্মেদ, আইনজীবী শামীম আজিজ খান।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply