মাটি খুঁড়তে গিয়ে বেরিয়ে এলো ৮ মাস আগে নিখোঁজ শিশুর লাশ

|

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে মাহিন (১৩) নামে এক শিশুর লাশ তার নিখোঁজ হবার আট মাস পর মাটির নিচ থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে উপজেলার কালিপুরা গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে।

এই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আটক করা হয়েছে শিশুটির আপন ফুফু ও ফুফাকে। সোমবার (১৮ অক্টোবর) উপজেলার কালিপুরা গ্রামের একটি পুকুর পাড়ের মাটি খুঁড়তে গিয়ে শিশুটির লাশের সন্ধান পাওয়া যায়।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কক্সবাজার জেলার রামু থানার গর্জনিয়া ইউনিয়নের পূর্ব বোমাং গ্রামের গ্রাম পুলিশ বিমল মল্লিকের ছেলে রিপন মল্লিক গত ৯ বছর আগে নবীনগর উপজেলার কালিপুরা গ্রামে এসে ধর্ম পরির্বতন করে মুসলমান হন ও নাম বদলিয়ে মনসুর নামে পরিচিত হন। পরে মাহিনের ফুফু সুরিয়া বেগমকে বিয়ে করে কালিপুরা গ্রামে বসবাস করে আসছেন মনসুর। প্রায় সময়ই মাহিনকে নিয়ে বিভিন্ন জায়গাতে ঘুরতে যেতেন তিনি। তবে গত ১০ মার্চ মাহিন বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেনি। পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুঁজি ও মনসুরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেও কোনো সন্ধান না পেয়ে নবীনগর থানায় নিখোঁজের ডায়েরি করেন।

সোমবার কালিপুরা গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য শুক্কু মিয়ার পুকুর পাড়ের মাটি ভেকু দিয়ে কাটার সময় বের হয়ে আসে এক শিশুর মাথার খুলি ও শরীরের বিভিন্ন অংশের হাড়। বিষয়টি জানাজানি হলে মাহিনের পরিবারের লোকজন এসে লাশের পাশে থাকা কাপড় দেখে এটি মাহিনের লাশ বলে শনাক্ত করে। পরে পুলিশ এসে লাশটি উদ্ধার করে।

খুনের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে মনসুর জানান, মাহিন তার অনেক ক্ষতি করেছে। সে কারণে তাকে হত্যা করে মাটির নিচে চাপা দিয়ে রাখেন তিনি।

এই ব্যাপারে নবীনগর থানার ওসি (তদন্ত) নুরে আলম প্রাথমিক তদন্তের কাজ চলছে। এই ঘটনায় মাহিনের মা হোসনা বেগম নবীনগর থানায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply