মালদ্বীপে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের প্রতিকূলতা

|

মালদ্বীপে ব্যবসা করার সুযোগ রয়েছে অনেক। তবে নানা প্রতিকূলতা পারি দিতে হচ্ছে প্রবাসী বাংলাদেশিদের। নিজেরা উদ্যোক্তা হলেও স্থানীয়দের নামেই তাদের পরিচালনা করতে হচ্ছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

মালদ্বীপ এমন দেশ যেখানে প্রায় সকল কিছুই আমদানি করতে হয়। নিত্যপণ্য আনতে হয় বিভিন্ন দেশ থেকে। রাজধানী মালেতে ঘুরতেই দেখা গেলো প্রবাসী বাংলাদেশি হাদিউল ইসলামের দোকান। এই উদ্যোক্তা বাংলাদেশ থেকে পণ্য আমদানি করে নিজের দোকানের পাশাপাশি পাইকারি বিক্রি করে থাকেন। শহরের টাটা ভবনে তার দোকানে দেখা মিললো বাংলাদেশি অনেক পণ্যের। একটি গোডাউন দিয়ে ব্যবসা শুরু করে এখন নিজেই বেশ কয়েকটি দোকান দিয়েছেন তিনি। তবে সমস্যা হলো, নিজের বিনিয়োগ থাকলেও অন্যের নামে ব্যবসা খুলতে হয়েছে তাকে।

বাবুল হোসেনেরও দোকান রয়েছে বেশ কয়েকটি। ২২ বছর অবস্থান করা এই প্রবাসী বিয়েও করেছেন মালদ্বীপে। শুরুর দিকের আমদানিকারক ছিলো হতোগোনা কয়েকজন। এখন আমদানিকারক বেড়ে যাওয়ায় বাজারে বেড়েছে প্রতিদ্বন্দ্বিতা। এই উদ্যোক্তা মনে করেন পণ্য পরিবহনের খরচ কমানো হলে বাংলাদেশ থেকে আরও পণ্য আমদানি করা সম্ভব।

মালদ্বীপে ব্যবসা করার আরেকটি সমস্যা হলো, এখানে বিনিয়োগের জন্য বড় মূলধনের প্রয়োজন হয়। প্রবাসী উদ্যোক্তারা ব্যবসার চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলার জন্য দেশটিতে বাংলাদেশের হাই কমিশনকে পাশে চায়। প্রবাসী বাংলাদেশিদের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় হাইকমিশন উদ্যোক্তাবান্ধব সিদ্ধান্ত নিলে অনেকেই নির্বিঘ্নে ব্যবসা করার সুযোগ পাবেন বলে আশা উদ্যোক্তাদের।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply