যেভাবে দেশে আসে মাদক ক্রিস্টাল মেথ

|

এ যাবৎকালে সবচেয়ে বড় ক্রিস্টাল মেথ বা আইসের চালান জব্দ করার দাবি করেছে এলিট ফোর্স র‍্যাব। যার পরিমাণ ৫ কেজিরও বেশি। এবং এর বাজারমূল্য ১২ কোটি টাকার বেশি। টেকনাফ থেকে সরাসরি ঢাকায় ঢুকছিল আইসের চালানটি। পরিবহনের সময় যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে চালানটি জব্দ করে র‍্যাব। এছাড়াও অভিযানে আটক হয় হোসেন ওরফে খোকন। খোকন টেকনাফে আইস পাচার চক্রের অন্যতম হোতা বলে জানিয়েছে র‍্যাব। তার সহযোগী রফিক ইজিবাইক ড্রাইভার সেজে পাচারের সাথে যুক্ত ছিল।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আইস উদ্ধার ও দেশে মাদকটির প্রবেশের পদ্ধতি নিয়ে কথা বলেন র‍্যাবের লিগ্যাল ও মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

র‍্যাব জানায়, মিয়ানমারেই তৈরি হচ্ছে প্রাণঘাতী মাদক আইস বা ক্রিস্টাল মেথ। টেকনাফ হয়ে সেগুলো ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে বাংলাদেশে। ইয়াবার কারবার থেকে আইস মাদক পরিবহন ও বিক্রি সহজ বলে, মাদক ব্যবসায়ীরা এখন আইসের দিকে ঝুঁকছে। আইস চালানে যুক্ত একটি চক্রের হোতাকে আটকের পর এসব তথ্য জানিয়েছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানান, চক্রটির সদস্য হিসেবে আমরা ২০-২৫ জনের নাম পেয়েছি। সিন্ডিকেটটি মূলত নৌপথ ব্যবহার করে দেশে আইস ও ইয়াবার প্রবেশ ঘটান। আরও কয়েকজন সদস্য রাজধানী ঢাকার উত্তরা, বনানী, মোহাম্মদপুর, মিরপুর ও গুলশান এলাকায় রয়েছে।

কিন্তু প্রশ্ন হলো আইস মাদক টেকনাফ দিয়ে আসে কেন? র‍্যাব তদন্ত করে বলছে, আইস উৎপাদন হচ্ছে মিয়ানমারে। মিয়ানমারের মাদক ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে এটি ছড়িয়ে দিতে এ দেশীয় পাচারকারীদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ও অস্ত্র সরবরাহ করে আইস পাঠাচ্ছে।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানান, ২০১০ সালে একটা ধারণা ছিল যে আইস থাইল্যান্ড থেকে মিয়ানমার হয়ে বাংলাদেশে পৌঁছায়। কিন্তু সম্প্রতি আমরা যাদের গ্রেফতার করেছি তারা জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে আইস মিয়ানমারেই তৈরি হচ্ছে। মিয়ানমার থেকে এক গ্রাম আইস ১৫০০ থেকে ২০০০ টাকায় ক্রয় করে সেটি বাংলাদেশে এনে কমপক্ষে ১৫ থেকে ২৫ হাজার টাকায় পর্যন্ত দামে বিক্রি করে।

তিনি আরও জানান, পার্শ্ববর্তী দেশের মাদক ব্যবসায়ীরা একটি কৌশল অবলম্বন করেছে। যেখানে তারা আমাদের দেশের মাদক চোরাকারবারিদের প্রস্তাব দিয়েছে যদি তাদের মাদকের চালানটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হয়, তাহলে সেটির দাম পরিশোধ করতে হবে না।

পরবর্তীতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের সাথে সমন্বয় করে আইস নিয়ে আরও অভিযান চালানোর কথা জানিয়েছে র‍্যাব।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply