পিরোজপুরে ইউএনওর হস্তক্ষেপে বন্ধ হলো মাদ্রাসাছাত্রীর বাল্য বিবাহ

|

দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে বাল্য বিবাহ বন্ধ করলেন পিরোজপুরের ইন্দুরকানীর উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুৎফুন্নেসা খানম।

পিরোজপুর প্রতিনিধি:

পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলায় ইউএনওর হস্তক্ষেপে নবম শ্রেনীতে পড়ুয়া এক মাদ্রাসাছাত্রীর বাল্য বিবাহ বন্ধ হয়েছে।

আজ শুক্রবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলার সেউতিবাড়ীয়া গ্রামের খেজুরতলা দাখিল মাদরাসার নবম শ্রেণির ছাত্রী মরিয়ম আক্তার (১৪) কে ভুয়া জন্ম নিবন্ধন সনদ দেখিয়ে তার ফুফাতো ভাইয়ের সাথে বিয়ে দেয়ার আয়োজন করা হয়। এ সংবাদ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) লুৎফুন্নেসা খানম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। ইউএনও আসার খবরে পালিয়ে যায় বরপক্ষের লোকজন। এ সময় মেয়ের বাল্যবিবাহ দেয়ার অভিযোগে ওই মাদ্রাসাছাত্রীর বাবাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) লুৎফুন্নেসা খানম জানান যে স্থানীয়দের থেকে খবর পেয়েই তিনি ঘটনাস্থলে যান। আর তার আসার খবরে পালিয়ে যায় বর পক্ষের লোকজন। তিনি ওই ছাত্রীর জন্মনিবন্ধন যাচাই করে দেখেন একটি ভুয়া জন্মনিবন্ধন সনদ ইস্যু করা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে ওই মাদ্রাসা ছাত্রীর বয়স ১৫ বছর।

তিনি আরও জানান, বাল্যবিবাহ আয়োজনের অভিযোগে মেয়ের বাবাকে ৫ হাজার টাকা জরিমান করে অনুষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

/এসএইচ


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply