হায় রিমু! হায় বিপাশা! হায় অনিরুদ্ধ!

|

তারা দু’জনই ছিলেন কর্মঠ। কাজের পাশাপাশি যুক্ত ছিলেন সাংস্কৃতিক-সামাজিতক নানা সংগঠনের সাথে। হয়তো একটু ক্লান্তিই পেয়ে বসেছিল অথবা ৭ বছরের ছোট্ট অনিরুদ্ধকে নিয়ে ঘুরে আসার বাসনা। দু’জনের অফিস থেকেও মিলে গেল ছুটি। আর কী! নেপালের উদ্দেশে চেপে বসলেন ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমানে। কিন্তু, গন্তব্য তাদের নিয়ে গেল অন্য কোথায়। কোনো এক অনন্তে যাত্রা করলেন তারা।

বলছি, রফিক জামান-সানজিদা হক দম্পতির কথা। যারা বন্ধুমহল ও সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে রিমু-বিপাশা নামে সমধিক পরিচিত ছিলেন।

রফিক জামান ও সানজিদা হক দু’জনই পড়াশোনা করেছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। যুক্ত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদের সাথে। রফিক প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কাজ করতেন। কর্মরত ছিলেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে। আর সানজিদা সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করতেন সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন’এ।

সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার জানালেন, সানজিদা ছিল খুবই কর্মঠ ও দায়িত্বশীল। ছুটি নেয়ার সময়ও সানজিদা ভাবছিল অফিসের কাজে কোনো অসুবিধা হয়ে যায় কিনা। আমরাই বরং চেয়েছিলাম সে ছুটি নিয়ে ঘুরে আসুক। কী বলবো, ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না…’

স্বভাবতই এমন দু’জন মানুষের মৃত্যুতে বন্ধু-স্বজনদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। সেটি আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে শিশু অনিরুদ্ধ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও যার প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে।
তাদের স্নেহভাজন শরিফুল হাসান লিখেছেন, ‘আহা জীবন! আহা বিপাশা আপু! আহা অনিরুদ্ধ ! অাহা রিমু ভাই! ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে প্রথম বর্ষেই চলচ্চিত্র সংসদে পেয়েছিলাম বিপাশা আপুকে। সেই ১৬ বছর আগে। এরপর রিমু ভাইয়ের সাথে বিয়ে। এরপর এলো অনিরুদ্ধ।

কিছুদিন সাংবাদিকতা করলেন রিমু ভাই মানে রফিক জামান। আমরা তাকে বলতাম ‘বস’। আর সদা মিষ্ট হাসি বিপাশা আপুর সাথে নানা সংবাদ সম্মেলনে দেখা হতো। নেপালে বিমান দুর্ঘটনা এবং সেখানে এই তিনজন আছে জেনেই খোঁজ নিতে বললাম আমার নেপালি বন্ধু বান্ধবীদের। ওদের একজন কৃতি জানালো আজ সকালেও ঢাকা থেকে প্লেনে উঠার আগে ওকে ফোন দিয়েছে। বলেছে নেপালে বেড়া‌বে। ওকে যেন একটু সময় দেয়। কৃতিও অপেক্ষায় ছিলো। অথচ কয়েক সেকেণ্ডে বদলো গেলো সব।’

এমনই আরও নানা শোকাতুর পংক্তিমালায় ভরে উঠেছে ‘বস’ অর্থাৎ রফিক জামান ও সানজিদা হকের ফেসবুক ওয়াল।

তাদের বন্ধু-স্বজনরা আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নেপালে বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় হতাহতদের স্মরণে শহীদ মিনারে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করবেন। স্মরণ করবেন রিমু-বিপাশা-অনিরুদ্ধকে।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply