৬ দিনের ব্যবধানে কুয়াকাটা সৈকতে আবারও মৃত ডলফিন

|

কুয়াকাটা সৈকতে আবারও ভেসে এসেছে মৃত ডলফিন।

পটুয়াখালী প্রতিনিধি:

ছয় দিনের মধ্যে কুয়াকাটা সৈকতে আবারও ভেসে এসেছে ৭ ফুট দৈর্ঘ্যরে একটি শুশুক প্রজাতির মৃত ডলফিন।

বুধবার ভোরে সৈকতের ঝাউবাগান এলাকায় ডলফিনটি বালুর ওপরে পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা। পরে কুয়াকাটা ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্যদের খবর দিলে তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ নিয়ে চলতি বছর কুয়াকাটা সৈকতে মোট ২৩টি মৃত ডলফিন ভেসে এলো।

ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্য কে এম বাচ্চু জানান, অন্যান্য ডলফিনের মতো এটিরও মাথায় ও লেজে আঘাতের চিহ্ন আছে। ধারণা করা হচ্ছে, জেলেদের আঘাতে এটির মৃত্যু হয়েছে। আনুমানিক তিন থেকে চারদিন আগে ডলফিনটির মৃত্যু হতে পারে। মারা যাবার পর এটি জোয়ারের পানিতে ভেসে সৈকতে এসে বালুর ওপর আটকে পরেছে।

তিনি বলেন, বুধবার আনুমানিক সাড়ে পাঁচটা কি ছয়টার দিকে ভাড়ায় চালিত এক মোটরসাইকেল চালক তাকে ফোন দিয়ে মৃত ডলফিনটির ব্যাপারে প্রথমে খবর দেয়। পরে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে ডলফিনটির ভিডিও, স্থির ছবি ধারণ করেন। এবং সেটি মাটি চাপা দেয়ার ব্যবস্থা করেন।

ডলফিন রক্ষা কমিটির সদস্য আবুল হোসেন রাজু জানান, এর আগে গত ২৩ সেপ্টেম্বর সৈকতের তেত্রিশকানি এলাকায় একটি মৃত ডলফিন ভেসে এসেছিল। সেটির শরীরেও আঘাতের চিহ্ন ছিল। এ নিয়ে এ বছর মোট ২৩টি মৃত ডলফিন ভেসে আসলো সৈকতে।

পটুয়াখালী বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, বার বার কেনো মৃত ডলফিন ভেসে আসছে আর কেনোইবা মারা যাচ্ছে সেটি উদ্বেগের বিষয়। বিষয়টি নিয়ে গত আগস্টে জেলা উন্নয়ন ও সমন্বয় কমিটির সভায় আলোচনা হয়েছে। এ বিষয়ে করনীয় সম্পর্কে জানতে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

ইকোফিশ-২ প্রকল্পের বিশেষজ্ঞ সাগরিকা স্মৃতির মতে, সাগরে যেসকল জেলেরা মাছ শিকার করে তাদেরকে সচেতন করতে হবে। পাশাপাশি ডলফিন কেনো মারা যাচ্ছে সেটি নিয়েও ব্যাপক গবেষণা করা দরকার।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লা এমদাদুল্লাহ জানান, ডলফিন মৃত্যুর কারণ এখনও নিশ্চিত নয়। এটি নিয়ে ব্যাপকতরভাবে গবেষণা দরকার। গত কয়েক বছর ধরে সাগরে ৬৫ দিনের যে নিষেধাজ্ঞা চলে ঠিক ওই সময়ে সাগরের কিছু মাছ বিষাক্ত হয় এবং সেগুলো খেয়েও ডলফিন মারা যেতে পারে। আবার সাগরে কিছু বিষাক্ত শ্যাওলা আছে যেগুলো শামুক ঝিনুক খায়। আবার সেই শামুক ঝিনুক খেয়েও ডলফিন মারা যেতে পারে। তবে ডলফিন মারা যাবার পেছনে প্রকৃত কারণ উদঘাটনের জন্য ব্যাপক গবেষণা দরকার।

ইউএইচ/


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply