উত্তপ্ত জেরুজালেম; হামাস-ইসরায়েল পাল্টাপাল্টি হুঁশিয়ারি

|

ছবি: সংগৃহীত

সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানের নামে আবারও ফিলিস্তিনে বেড়েছে ইসরায়েলের নিপীড়ন। রাতের অন্ধকারে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর নিপীড়ন-হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে তারা।

পবিত্র জেরুজালেম যেন এখন ত্রাসের নগরী। রোববারও (২৭ সেপ্টেম্বর) পশ্চিম তীরে ৫ বেসামরিক নাগরিককে হত্যা করা হয়। পাশাপাশি রামাল্লাহ্, জেনিন ও বেইত আনানের মতো শহরগুলোও উত্তপ্ত।

উপত্যকার স্থানীয় অধিবাসীরা জানায়, ভোরের দিকে উপত্যকায় একটি ইসরায়েলি হেলিকপ্টার উড়ে আসে। তিন-চারদফা গোলাগুলি চালায় তারা। সাথে সাথে ছড়িয়ে পড়ে আগুন। কিছুক্ষণ পর ১৫-১৬ জন ইহুদি সেনা বাইরে নিয়ে আসে দুজনের মরদেহ।

নিরস্ত্র ফিলিস্তিনিদের ওপর এই অমানবিক নির্যাতনের মোক্ষম জবাব দেয়া হবে বলে হুমকি দিয়েছে হামাস। ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী এ সংগঠনটির দাবি, তাদের গোপন আস্তানার সন্ধান পেতেই চালানো হচ্ছে এ অত্যাচার।

হামাসের মুখপাত্র ফাওজি বারহোম বলেন, মুসলিম ভাইদের শাহাদাৎ বৃথা যেতে দিবো না। দখলদারিত্ব ও ধর্ষক ইসরায়েলিদের মোক্ষম জবাব দিতেই অস্ত্র তুলে নিয়েছি। ফিলিস্তিনিদের অধিকার, সার্বভৌমত্ব, ভূখণ্ড আর পবিত্র স্থাপনা রক্ষায় এটা আমাদের অঙ্গিকার। পশ্চিমতীর আর জেরুজালেমে রক্তের বিনিময়ে এবার রক্ত ঝড়বে, বুলেটের বদলে ছোঁড়া হবে বুলেট।

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট বলেন, জাতিসংঘ এমন মঞ্চ যেখানে দাঁড়িয়ে ইসরায়েলের অধিকার সম্পর্কে বলার সুযোগ থাকে। রকেট ও ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ব্যবস্থা আয়রন ডোমের জন্য নতুনভাবে ১০০ কোটি ডলার তহবিল দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। যার মাধ্যমে বাড়ানো যাবে আঞ্চলিক দখলদারিত্ব। প্রস্তাব পাশে গুটিকয়েক আইনপ্রণেতা ভেটো দিলেও পাশ হওয়া বন্ধ হয়নি। ইসরায়েল বিরোধীরা চেচামেচি করলেও তারা ব্যর্থ হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

গত মাসে ইসরায়েলের সুরক্ষিত কারাগার থেকে ৬ ফিলিস্তিনি বন্দি পালিয়ে শোরগোল ফেলে দেয়। তাদের পুনরায় গ্রেফতার করা হলেও অঞ্চলটিতে বেড়েছে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply