ঢাবিতে গ্রন্থাগার খোলার প্রথম দিনই ঘটলো অপ্রীতিকর ঘটনা

|

গ্রন্থাগার খোলার প্রথম দিনেই সৃষ্টি হয় অপ্রীতিকর পরিস্থিতি।

করোনা মহামারির কারণে প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর গ্রন্থাগার ও বিভাগ-ইনস্টিটিউটের সেমিনার খুলে দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আর খোলার প্রথম দিনই গ্রন্থাগারে প্রবেশ নিয়ে কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে ঘটলো অপ্রীতিকর ঘটনা। নিয়ম না মেনে হুড়োহুড়ি করে সাবেক শিক্ষার্থীরা প্রবেশ করতে শুরু করলে একজন সহকারী প্রক্টর তাদের চড় মারতে উদ্যত হন। এ নিয়ে উত্তেজিত হয়ে পড়েন শিক্ষার্থীরা।

আজ রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল দশটা থেকে গ্রন্থাগার খুলে দেয়া হয়। সেসময়ই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান গ্রন্থাগারে ঘটনাটি ঘটে। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে প্রবেশ করতে চাওয়ায় শিক্ষার্থীদের সাথে কর্তৃপক্ষের বাহাসের সূত্র ধরে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। 

গ্রন্থাগারে ঢোকার শর্ত হিসেবে ন্যূনতম এক ডোজ টিকার সনদপত্র ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয়পত্র দেখানোর কথা বলা হয়। কিন্তু অনেক সাবেক শিক্ষার্থী স্বাস্থ্যবিধি না মেনে হুড়মুড় করে ভেতরে ঢুকে পড়তে থাকে।

এর কিছুক্ষণ পর গ্রন্থাগার পরিদর্শন করতে আসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী, প্রধান গ্রন্থাগারিক নাসিরউদ্দিন মুন্সি ও শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নিজামূল হক ভূঁইয়াসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা। তারা শিক্ষার্থীদের সাথে স্বাস্থ্যবিধি বিষয়ে কথা বলা শুরু করলে শুরু হয় উত্তেজনা। ঘটনার একপর্যায়ে ঢাবির সহকারী প্রক্টর লিটন কুমার সাহা উপস্থিত এক শিক্ষার্থীকে চড় মারতে উদ্যত হন। এতে শিক্ষার্থীরা ক্ষেপে গিয়ে তাকে ঘিরে ধরে।

এ বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা চিন্তা করে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মানতে বলা হয়েছে। গ্রন্থাগারে কেবল নিয়মিত শিক্ষার্থীদের প্রবেশের কথা ছিল। এখন সাবেক শিক্ষার্থীরা ঢুকে পড়েছে। তারা যদি অসহযোগিতা করলে তাহলে তো কঠিন হয়ে যায়। 





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply