সম্পত্তির লোভে ২০ বছর ধরে পরিবারের পাঁচ সদস্যকে খুন করেছে যুবক

|

প্রতীকী ছবি।

সম্পত্তির নিজের নামে করে নিতে ২০ বছর ধরে পরিবারের পাঁচ সদস্যকে বিষপান করিয়ে খুন করার অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে।

ভারতের উত্তরপ্রদেশের গাজিয়াবাদে ঘটনাটি ঘটেছে। খুনের অভিযোগে ওই যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে সে নিজের অপরাধের কথা স্বীকার করেছে বলে জানা গিয়েছে। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

পুলিশ জানিয়েছে, গত ১৫ আগস্ট ব্রিজেশ ত্যাগী নামের এক ব্যক্তি থানায় এসে জানান, এক সপ্তাহ ধরে তার ছেলে রেশুর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে সম্পত্তি নিয়ে ব্রিজেশের সঙ্গে বিবাদ চলছে তার ছোট ভাই লীলুর। তার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি সূত্র পায় পুলিশ। অবশেষে মুরাদনগর থেকে গ্রেফতার করা হয় লীলুকে।

গাজিয়াবাদ পুলিশের এক কর্তা জানিয়েছেন, জিজ্ঞাসাবাদের সময় নিজের অপরাধের কথা স্বীকার করে লীলু। সে জানায়, ভাতিজাকে অপহরণ করার পর তাকে বিষপান করিয়ে দেহ একটি খালে ফেলে দিয়েছে। সেই সূত্র ধরে খাল থেকে দেহ উদ্ধার করার চেষ্টা করছে পুলিশ।

পুলিশের সূত্র জানা যায়, ২০ বছর আগে ২০০১ সালে প্রথমে দাদা সুধীর ত্যাগীকে বিষপান করিয়ে খুন করে লীলু। এর কয়েক মাস পরে সুধীরের আট বছর বয়সী মেয়ে পায়েলকেও একই ভাবে খুন করে সে। জোড়া খুনের তিন বছর পর সুধীরের বড় মেয়ে ১৬ বছর বয়সী পারুলকে খুন করে লীলু। এখানেই থামেনি। ২০১২ সালে ব্রিজেশের আরেক ছেলে নিশুকে খুন করে।

গাজিয়াবাদে ত্যায়াগী পরিবারের একটি জমি রয়েছে, যার মূল্য পাঁচ কোটি রুপি। সেই জমি হাতিয়ে নেয়ার জন্যই একের পর এক খুন করেছে লীলু। এই ঘটনায় লীলুকে সাহায্য করার অভিযোগে আরও চার জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply