স্তব্ধ দেহের ওপর এ কেমন নৃশংসতা!

|

ছবি: সংগৃহীত।

নিজের ভিটেমাটি থেকে উচ্ছেদ ঠেকাতে পুলিশের সামনে একটি লাঠি হাতে ছুটে এসেছিলেন মইনুল হক (৩৩)। মুহূর্তেই পুলিশের উপর্যপুরি লাঠির আঘাতে মাটিতে পড়ে যান তিনি। দৌড়ে এসে লড়াই করার প্রবল বাসনা যার, তার নিথর দেহ পড়ে আছে মাটিতে। তাতেও যেন রক্ষা নেই নিজের ভিটে রক্ষা করতে আসা প্রতিবাদী মইনুলের।

তার নিথর দেহ যখন পড়ে আছে মাটিতে, তখন সেই দেহের ওপর যেন রাজ্যের জমানো ক্ষোভ উগড়ে দিলেন বিজয় বানিয়া নামে এক চিত্র সাংবাদিক। দূর থেকে দৌড়ে এসে শূন্যে লাফিয়ে উঠে মাটিতে নিথর দেহের বুকে আছড়ে পড়ছেন একের পর এক। তাতেও যেন তার ক্ষোভ মিটছে না। একটু পর আবার দূর থেকে দৌড়ে এসে সজোরে মারছেন ঘুষি। তাকে আটকাতে পারছেন না পুলিশ সদস্যরাও।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) মর্মান্তিক এই দৃশ্য দেখা গেছে আসামের সিপাঝার এলাকায়। এই ঘটনা নিয়ে সরব হয়েছে ভারতীয় মিডিয়া।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম স্ক্রল ইন লিখেছে, আসামের সিপাঝারের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়েছে। এতে দেখা যায়, মাটিতে নিথর পড়ে থাকা এক ব্যক্তির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ছেন একজন আলোকচিত্রী। ওই ব্যক্তির শরীর থেকে মাটিতে গড়িয়ে পড়ছে রক্ত।

বানিয়া বিচ্ছিন্ন কোনও অপরাধ করেননি বা বিচ্ছিন্ন কোনও বিদ্বেষ উগড়ে দেননি। আসামের কয়েক দশকের নোংরা রাজনীতি এ ধরনের উগ্রতার দিকে ঠেলে দিয়েছে তাকে। আদিবাসীদের স্বার্থ রক্ষার নামে তথাকথিত বিদেশিদের তাড়াতে সরকারের নেয়া উদ্যোগ এ জন্য দায়ী। এতে কট্টর হিন্দুত্ববাদী ভারতীয় জনতা পার্টি নেতৃত্বাধীন সরকারের সমর্থন আছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply