দীর্ঘ হচ্ছে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে অভিযোগের তালিকা

|

অভিযোগ নিয়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে ছুটছে মানুষ। কিন্তু সেখানেও স্বস্তির খবর নেই। কোথায় গেলে মিলবে টাকা, তা নিয়ে দুশ্চিন্তার শেষ নেই মানুষের। গত দুই মাসে ই-কমার্স নিয়ে অভিযোগ জমা পড়েছে প্রায় ছয় হাজার। প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্তারা বলছেন, গ্রাহকের অধিকার নিশ্চিত করতে চেষ্টার ত্রুটি নেই তাদের।

ই-কমার্স ব্যবসা নিয়ে দেশজুড়েই হইচই, হা হুতাশ। অতিমুনাফার লোভ দেখিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে নেয়া হয়েছে অর্থ। সঠিক সময়ে পণ্য না দেয়ায় বাড়ছে উদ্বেগ। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে ভিড় করছে মানুষ। প্রতিকার চেয়ে অভিযোগ দায়ের করছে ক্ষুব্ধ গ্রাহক। সকাল থেকে বিকেল, বলা যায় সারা দিনই থাকছে মানুষের আনাগোনা।

গেল দুই মাসে ই-কমার্স নিয়ে হু হু করে বাড়ছে অভিযোগের সংখ্যা। জুলাই এবং আগস্ট, এই দুই মাসে এই খাত নিয়ে অভিযোগ পড়েছে প্রায় ৬ হাজার। আগের সব মিলিয়ে মোট অভিযোগের সংখ্যা প্রায় সাড়ে ১৯ হাজার। তবে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা জানালেন, ইতোমধ্যে ১২ হাজারের বেশি অভিযোগ নিষ্পত্তি করেছে এই প্রতিষ্ঠান।

সম্প্রতি আলোচনায় আসা ইভ্যালির বিরুদ্ধেই অভিযোগ জমা পড়েছে ৭ হাজারের বেশি। তারপরেই আছে ‘ই-অরেঞ্জ’ এর নাম। এক এক করে মোট ১৯টি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছে গ্রাহকরা। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক জানাচ্ছেন, তাদের বিরুদ্ধে অধিকাংশই মূলত প্রতিশ্রুত সময়ের মধ্যে পণ্য না দেয়ার অভিযোগ।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply