কেন এত পিছিয়ে রৌমারী উপজেলা?

|

স্বাধীনতার ৫০ বছরেও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটেনি কুড়িগ্রামের প্রত্যন্ত উপজেলা রৌমারীতে। পর্যাপ্ত রাস্তা, সেতু ও কালভার্ট না থাকায় চরম দুর্ভোগে সীমান্তবর্তী এই উপজেলার মানুষ। অর্থনৈতিকভাবেও পিছিয়ে তারা।

বন্যাপ্রবণ উপজেলা রৌমারী। সবমিলিয়ে টিকে থাকার লড়াই চলে এখানকার মানুষের। এছাড়া সবদিক দিয়েই পিছিয়ে এখানকার মানুষ। বড় বড় খালে ব্রিজের পরিবর্তে বাঁশের সাঁকো। মূল সড়কটিও মাটির। জায়গায় জায়গায় খানাখন্দে ভরা। একটু বৃষ্টিতেই পানি জমে থাকে মূল সড়কে। সবমিলিয়ে যাতায়াত ব্যবস্থা অত্যন্ত ভয়াবহ। সংকটের মুহূর্তে হাসপাতালে পৌঁছাতে না পারায় মারা যায় রোগী। রৌমারীর প্রায় প্রত্যেক এলাকার চিত্র এমনই।

স্থানীয়রা বলছেন, বেহাল যোগাযোগের কারণেই পিছিয়ে পড়েছেন তারা। বঞ্চিত হচ্ছেন চিকিৎসাসেবা থেকে। দুর্ভোগের শিকার শিক্ষার্থীরা তাদের পড়ালেখা চালিয়ে যেতে হিমশিম খাচ্ছে। চাষীরা যথাসময়ে তাদের ফসল বাজারজাত করতে পারছেন না। তাছাড়া যাতায়াত খারাপ হওয়ায় কৃষকরা কাঙ্খিত লাভ করতে পারছেন না।

উন্নত যোগাযোগের জন্য গোটা উপজেলায় কমপক্ষে ৩৭ টি ব্রিজ দরকার। এরমধ্যে কয়েকটি সেতু নির্মাণের অগ্রগতি হয়েছে।

রৌমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল ইমরান বলেন, টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতেই কাজ করে যাচ্ছি আমরা। এই অর্থবছরে এমন কিছু ব্রিজের প্রস্তাবনা পাশ হয়েছে। শীঘ্রই কাজ শুরু হবে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply