দুর্নীতির প্রমাণ সত্ত্বেও নেয়া হয়নি ব্যবস্থা, টিআইবির উদ্বেগ

|

জালিয়াতি ধরা পরার বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করে যমুনা টেলিভিশন। সেখানে রুপগঞ্জ থানার তখনকার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মাহমুদুল হাসানসহ বেশ কয়েকজনের জড়িত থাকার প্রমাণ তুলে ধরা হয়।

পুলিশের কনস্টেবল নিয়োগে নারায়ণগঞ্জে ব্যাপক জালিয়াতির প্রমাণ হওয়ার পরও দায়িত্বপ্রাপ্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়ায় উদ্বেগ জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, টিআইবি।

এ ঘটনাকে অমার্জনীয় উল্লেখ করে সংশ্লিষ্ট সকলের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক জবাবদিহি নিশ্চিতের দাবি করেছে সংস্থাটি।

রোববার (১৯ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তারা এ দাবি জানায়। এর আগে নিয়োগ জালিয়াতি ধরা পরার বিষয়টি বিস্তারিত তুলে ধরে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করে যমুনা টেলিভিশন। সেখানে রুপগঞ্জ থানার তখনকার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মাহমুদুল হাসানসহ বেশ কয়েকজন কমর্কতার জড়িত থাকার প্রমাণের তথ্য তুলে ধরা হয়। তার পরও তাদের বিরুদ্ধে এখনও কোনো ধরনের ব্যবস্থা নেয়া তো দূরের কথা, অভিযুক্তদের ডিএমপিসহ পছন্দের বিভিন্ন যায়গায় পোস্টিং দেয়া হয়েছে।

এর প্রেক্ষিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান উদ্বেগ জানিয়ে ২০২০ সালে পুলিশ হেডকোয়ার্টারের তদন্তে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দ্রুত শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার দাবি করেন। তা না হলে ভবিষ্যতে এ ধরনের দুর্নীতি ঠেকানো যেমন যাবে না, তেমনি পুলিশের ওপর সাধারণ মানুষের আস্থা নষ্ট হবে বলেও উল্লেখ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply