টাইগারদের সামনে ২১৫ রানের বিশাল লক্ষ্য

|

নিদাহাস কাপে নিজেদের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচেও শুরুটা ভালো করতে পারেনি বাংলাদেশ। ম্যাচের শুরু থেকেই বাংলাদেশের বোলারদের ওপর চড়াও হয় লঙ্কান ব্যাটসম্যানরা। শেষ পর্যন্ত টাইগারদের ২১৫ রানের বিশাল লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছে শ্রীলঙ্কা।

এরআগে টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন সাকিবের অনুপস্থিতিতে অধিনায়কত্ব করা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তার সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই যেন শুরু থেকে চড়াও দুই লঙ্কান ব্যাটসম্যান মেন্ডিস ও গুণাথিলাকা। চতুর্থ ওভারেই পঞ্চাশ পার করে শ্রীলঙ্কা। সবচেয়ে বেশি ঝড় গেছে তাসকিনের ওপর। প্রথম দু’ওভারে ৩৩ রান দিয়েছেন এ পেসার। পঞ্চম ওভারে মোস্তাফিজ উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন গুণাথিলাকাকে বোল্ড করে। এরপর কুশল পেরেরার সাথে জুটি বেঁধে দ্বিতীয় উইকেটে ৮৫ রান যোগ করেন কুশল মেন্ডিস।

কিছুতেই কাজ হচ্ছে না দেখে নিজের ভুলে যাওয়া বোলার পরিচয়টার কথা যেন মনে পড়ে যায় মাহমুদউল্লাহর। সপ্তম বোলার হিসেবে আক্রমণে এসে এক ওভারে ২ উইকেট তুলে নেন অধিনায়ক। কুশল মেন্ডিসকে (৩০ বলে ৫৭) ক্যাচ বানিয়েছেন সাব্বিরের। দুই বলের মধ্যে আবারও সাব্বিরের ক্যাচ বানিয়েছেন শানাকাকে। পরের ওভারে দিনেশ চান্ডিমালেরও ক্যাচ নেন সাব্বির। উইকেটের ঘরে তাসকিনের নাম লেখা থাকলেও পুরো কৃতিত্ব সাব্বিরের। অসাধারণ এক ক্যাচ নিয়েছেন তিনি।

কিন্তু কুশল পেরেরার ব্যাটে রানের ফোয়ারা ছুটেই চলছিল। সাথে উপুল থারাঙ্গার ১৫ বলে ৩২ রানের ঝড়। শেষ ওভারে জোড়া আঘাত করেছিলেন মোস্তাফিজুর রহমান। দ্বিতীয় বলে কুশল পেরেরাকে ৭৪ রানে মুশফিকুর রহিমের ক্যাচ বানান তিনি। মাত্র ৪৮ বলে ৮ চার ও ২ ছয়ে ইনিংস সেরা পারফরম্যান্স করেন কুশল পেরেরা। থিসারা পেরেরাকে এক বল বিরতি দিয়ে নাজমুল ইসলামের ক্যাচ বানান বাঁহাতি পেসার। ৪ ওভারে ৪৮ রান দিয়ে ৩ উইকেট শিকার করেছেন এই বাহাতি।

শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেট হারিয়ে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২১৪ রান। এত রান তাড়া করে টি-টোয়েন্টিতে জেতার রেকর্ড নেই বাংলাদেশের। এখন ব্যাট হাতে তামিমরা কতটা জ্বলে উঠেন সেটিই দেখার অপেক্ষা।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply