কী উৎফুল্ল আশা নিয়ে এসেছিলেন বিনয় সবিনয়ে

|

কবি বিনয় মঞ্জুমদার। সংগৃহীত ছবি

ষাটের দশকের বাংলা সাহিত্যের এক অনন্য সাড়াজাগানো কবি বিনয় মজুমদারের জন্মদিন আজ। কবি লিখেছিলেন,
‘কী উৎফুল্ল আশা নিয়ে সকালে জেগেছি সবিনয়ে।
কৌটার মাংসের মতো সুরক্ষিত তোমার প্রতিভা
উদ্ভাসিত করেছিল ভবিষ্যৎ, দিকচক্রবাল।’

১৯৪৩ সালের এই দিনটিতেই বাবা বিপিনবিহারি মজুমদার ও মা বিনোদিনীর ঘর আলো করে ‘সবিনয়ে’ ধরায় এসেছিলেন কবি। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন সবখানে। ম্যাট্রিকুলেশন রেকর্ড নম্বর পেয়েছিলেন তিনি, শিবপুর কলেজ থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট। বিদেশের বড় বড় বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিতের শিক্ষক হবার সুযোগ ফিরিয়ে দিয়ে কবিতার জন্য রয়ে গেলেন কলকাতায়।

তুমুল মেধাবী এই কবি তার জীবনের দুই-তৃতীয়াংশ সময় কাটিয়েছেনে অসহ্য মানসিক যন্ত্রণায়, ভর্তি করানো হয়েছিল মানসিক হাসপাতালে।

গায়ত্রী চক্রবর্তীর প্রেমে পড়ে বিনয় পাঠকমহলকে দিয়েছেন অসাধারণ সব কবিতা। প্রেমটা যদিও একপাক্ষিক ছিল।

১৯৬২ সালে হাংরি আন্দোলনে যোগ দেন কবি। পরে শক্তি চট্টোপাধ্যায় ও সন্দীপন চট্টোপাধ্যায়ের কার্যকলাপে বিরক্ত হয়ে তাদের বিরুদ্ধে একটি আলাদা হাংরি বুলেটিন প্রকাশ করে কলকাতা কফি হাউজে বিলি করেন এবং হাংরি আন্দোলন ত্যাগ করেন। রবীন্দ্র পুরস্কার, সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কারসহ নানা পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি। ২০০৬ সালের ১১ ডিসেম্বর মারা যান প্রেম প্রকাশে ভীরু এ কবি।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply