মোটরসাইকেলের লোভে বন্ধুকে খুন

|

হত্যার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ আটক করেছে ইব্রাহিমের বন্ধু জাহিদ হাসান মামুনকে।

বগুড়া ব্যুরো:

মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিতে বন্ধুরাই গলা কেটে হত্যা করে চাতাল কর্মচারি ইব্রাহিম হোসেনকে। সম্প্রতি ইব্রাহিমের খুনি বন্ধুদের একজনকে আটকের পর খুনের ঘটনার রহস্য উন্মোচন হয়েছে।

আজ বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কার্যালয়ে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী এ তথ্য জানান। তিনি জানান, গত সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) গভীর রাতের ওই ঘটনায় ছিনিয়ে নেয়া মোটরসাইকেলও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পুলিশ সুপার জানান, ইব্রাহিম শেরপুর উপজেলায় তার মামার চাতালে কাজ করতেন। গত সোমবার সন্ধ্যায় তিনি চাতাল থেকে তার মামার মোটরসাইকেল নিয়ে বন্ধুদের সাথে বাইরে যান। পরে ওই রাতেই তাকে গাবতলী উপজেলার নিশিন্দারা এলাকা থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন সকালে হাসপাতালে মারা যান ইব্রাহিম।

হত্যার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ আটক করে ইব্রাহিমের বন্ধু জাহিদ হাসান মামুনকে। জিজ্ঞাসাবাদে মামুন জানায়, সে এবং ইব্রাহিমসহ ৮ বন্ধু মিলে বগুড়া শহর থেকে মদ কিনে গাবতলী উপজেলার একটি পরিত্যক্ত চাতালে গিয়ে মদপান করে। ইব্রাহিমকে খুন করে তার মামার মোটর সাইকেল এবং মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়ার উদ্দেশেই এলাকা থেকে তাকে গাবতলীতে নেয় মামুন এবং বাকি বন্ধুরা। মদপানের পর পরিকল্পনা মাফিক ধারালো ব্লেড দিয়ে ইব্রাহিমের গলা কেটে সেখানে ফেলে দেয় তারা। এরপর মোটরসাইকেল নিয়ে সটকে পড়ে। স্থানীয়রা খবর দিলে পরে গুরুতর আহত অবস্থায় ইব্রাহিমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে পুলিশ। পরদিন সেখানেই মারা যান ইব্রাহিম।

এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত বাকি ৬ জনকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে বলেও জানান পুলিশ সুপার।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply