ভারতে আছে শূন্য টাকার নোট, কী করা যায় এই নোট দিয়ে?

|

ভারতে একটি নোট প্রচলিত রয়েছে, যাকে বলা হয় ‘জিরো রুপি নোট’। এটি এমন একটি নোট, যা মূল্যহীন। ২০০৭ সালে ‘পঞ্চম পিলার’ নামে একটি অলাভজনক সংস্থা এই নোটটি বাজারে আনে। নোটটি দেখতে হু্বহু ভারতীয় পঞ্চাশ টাকার নোটের মতো। তবে পঞ্চাশের স্থলে এই নোটে লেখা আছে শূন্য। আর ভারতীয় নোটের যেখানে লেখা থাকে ‌’রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া’ নোটের সেই অংশে লেখা থাকে ‘এলিমিনেট করাপশন অ্যাট অল লেভেল’ অর্থাৎ সব স্তর থেকে দুর্নীতি দূর করুন।

মূলত এই নোটটি প্রচলনের উদ্দেশ্য হলো দুর্নীতির বিরুদ্ধে জনসচেতনতা তৈরি করা। সরকারি অফিসগুলোতে ঘুষ দেয়া-নেয়া বন্ধ করতেই এই অভূতপূর্ব পদক্ষেপ নিয়েছে সংস্থাটি। তারা চেয়েছিল, কোনো সরকারি অফিসার ঘুষ চাইলে তাকে এই টাকা দিয়ে বিব্রত করতে। আর এজন্য টাকার যে অংশে লেখা থাকে ‘বাহককে আমি ৫০ টাকা দিতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ’ সেখানে তারা লিখেছে, ‘প্রতিজ্ঞা করছি, কখনও ঘুষ দেব না এবং নেব না।’

এই নোটের পরিকল্পনা প্রথম মাথায় আসে সতীন্দ্রমোহন ভগবত নামে এক শিক্ষকের। সবখানে শিকড়ের মতো যেভাবে দুর্নীতি ছড়িয়ে পড়েছিল, তা তাকে ভাবিয়ে তুলেছিল। সেই ভাবনা থেকে ২০০১ সালে তিনি এই নোটের কথা জানান ‘পঞ্চম পিলার’ নামে ওই সংস্থাটিকে। পরে তারা ২৫ হাজার কপি নোট ছাপিয়েছিল। নোটগুলো তারা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে দিয়েছিল।

ভারতে এখনও এই নোটের ব্যবহার রয়েছে। ট্রাফিক পুলিশ থেকে শুরু করে কোনো অফিসার ঘুষ চাইলে অনেকেই তাদের জিরো রুপির নোট ধরিয়ে দেন।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply