কোয়ার্টার ফাইনালে য়্যুভেন্তাস-ম্যানচেস্টার সিটি

|

হিগুয়েন-দিবালার কল্যাণে টটেনহ্যামকে ২-১ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে য়্যুভেন্তাস। আর বাসেলের কাছে ২-১ গোলে হেরেও প্রথম লেগে বড় জয়ের বদৌলতে শেষ আট নিশ্চিত করেছে ম্যানচেস্টার সিটি।

প্রথম লেগে ৪-০ গোলের জয়ে এ দিন ইতিহাদ স্টেডিয়ামে অনেকটাই নির্ভার ছিল ম্যানচেস্টার সিটি। আর অন্তত ৫-০ গোলের ব্যবধানে জিতে ইতিহাস গড়ে কোয়ার্টার ফাইনালের স্বপ্ন ছিলো বাসেলের। তবে সেই অসাধ্য সাধনের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায় ম্যাচের ৮ মিনিটেই গ্যাবরিয়াল জেসুসের গোল। উড়তে থাকা ম্যানচেস্টার সিটির কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার কাজটা সহজ করে দেয় এই গোল।

তবে নাটকীয়ার বাকি ছিল তখনও। ১৭ মিনিটে স্বাগতিক দর্শকদের হতাশ করে বাসেলকে সমতায় ফেরান মোহামেদ এলাওনৌসি।

দ্বিতীয়ার্ধে বল দখলে এগিয়ে থেকে লাভ হয়নি গার্দিওলা শিষ্যদের। বরং ম্যাচের ৭১ মিনিটে এলাওনৌসির অ্যাসিস্ট থেকে বাসেলকে কে লিড এনেদেন মাইকেল ল্যান। থামে ইতিহাদ স্টেডিয়ামে ম্যানচেস্টার সিটির টানা ১২ ম্যাচ জয়ের রথ। ২০১৬ সালের পর এটাই ঘরের মাঠে তাদের প্রথম হার। তবে প্রথম লেগে ৪-০ গোলের জয়ে দুই লেগ মিলিয়ে ৫-২ গোল নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত হয় সিটিজেনদের।

ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরুতেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল স্বাগতিক টটেনহ্যামের। তবে জিয়ানলুইজি বুফনের কল্যাণে বেঁচে যায় য়্যুভেন্তাস।

৩৯ মিনিটে গোল পায় টটেনহ্যাম। সং হিউং মিনের গোলে লিড নেয় স্পার্স। ম্যাচের ৬৪ মিনিটে সামি খেদিরার অ্যাসিস্ট থেকে গঞ্জালো হিগুয়েনের গোলে সমতা ফেরে য়্যুভেন্তাস।

তখনও কোয়ার্টার ফাইনালের পথেই ছিল টটেনহ্যাম। তবে ৩ মিনিটের ব্যবধানে পাওলো দিবালার গোলে শেষ ৮ নিশ্চিত করে গেল বারের রানার্স আপরা। প্রথম লেগে য়্যুভেন্তাসের মাঠে ২-২ গোলের ড্র করেছিল টটেনহ্যাম।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply