জাতীয় কবি কাজী নজরুলের ৪৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

|

বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত

আজ ১২ ভাদ্র। বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪৫তম মৃত্যুবার্ষিকী। শৈশবের দুখু মিয়াই যৌবনে হয়ে ওঠেন উপমহাদেশের বিখ্যাত বিদ্রোহী কবি। মাত্র ২২ বছরের লেখক জীবনেই ৩ হাজার গান, অসংখ্য কবিতা, ছোটগল্প আর উপন্যাস দিয়ে দখল করে নিয়েছেন বাংলা সাহিত্যের অনন্য স্থান।

সৃষ্টিশীল অনন্য এক প্রতিভার নাম কাজী নজরুল ইসলাম। তিনি একাধারে কবি, সাহিত্যিক, গীতিকার, নাট্যকার ও চলচ্চিত্র অভিনেতা। শিল্পকলার নানান শাখায় ছিল তার অবাধ বিচরণ।

ক্ষণজন্মা এই প্রতিভার জন্ম ১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ জ্যৈষ্ঠ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার আসানসোলের চুরুলিয়া গ্রামে। শৈশব-কৈশোর-তারুণ্যে জীবনের পরতে পরতে তার সংগ্রাম। জড়িয়েছিলেন নানা পেশায়। ১৯১৭ সালে যোগ দেন সেনাবাহিনীতে। অংশ নেন প্রথম বিশ্বযুদ্ধে। ১৯২২ সালে প্রকাশ করেন ধূমকেতু পত্রিকা। ‘আনন্দময়ীর আগমনে’ কবিতার জন্য নজরুলকে দেয়া হয় এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড। নিজের পরিচালিত চলচ্চিত্র ‘ধ্রুব’তে অভিনয়ও করেন কবি।

১৯৪২ সালে বাকশক্তি হারান নজরুল। ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু কবি নজরুলকে সপরিবারে নিয়ে আসা হয় স্বাধীন বাংলাদেশে। মর্যাদা দেয়া হয় জাতীয় কবির।

১৩৮৩ বঙ্গাব্দের ১২ ভাদ্রে তৎকালীন পিজি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন মৃত্যুঞ্জয়ী কাজী নজরুল ইসলাম।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply