‘যারা কোনো ছবিতে কাজ না করেও বিলাসবহুল জীবনযাপন করছে তাদের আয়ের উৎসও খুঁজে দেখা উচিত’

|

পরীমণি ত্রিশটির বেশি সিনেমার সাথে জড়িত বলে জানতে পেরেছি। তার হাতে আছে আরও বেশ কিছু সিনেমা। যারা বছরের পর বছর একটি সিনেমাতেও কাজ না করে দিনের পর দিন শিল্পী সাইনবোর্ড ব্যবহার করে বিলাসবহুল জীবনযাপন করছে তাদের আয়ের উৎসও খুঁজে বের করা উচিত। বাংলা চলচ্চিত্রের সুপরিচিত অভিনেতা শাকিব খান তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজের একটি স্ট্যাটাসে এ কথা লিখেছেন।

পোস্টে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে পরীমণিকে কাঠগড়ায় তোলার ব্যাপারটিকে দুঃখজনক বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

শনিবার (১৪ আগস্ট) দুপুরে দেয়া ওই পোস্টে শাকিব খান লেখেন, দুঃখজনক ঘটনা হচ্ছে, গত কয়েকদিন ধরে খেয়াল করছি শুধুমাত্র অভিযোগের ভিত্তিতে পরীমণির গ্রেফতারের পর তার প্রতি কোনো ধরনের সহযোগিতার হাত না বাড়িয়ে; দুঃসময়ে শিল্পীর পাশে না থেকে উল্টো তড়িঘড়ি করে সংবাদ সম্মেলন করেছে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। মুহূর্তে পরীমণির সদস্যপদ স্থগিত করা হয়েছে। এ ঘটনাকে ‘কাটা ঘায়ে নুনের ছিঁটে’ বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

শিল্পী সমিতির এই আচরণকে রহস্যজনক উল্লেখ করে তিনি লেখেন, বিষয়টি নিয়ে বিবেকবান অনেক সিনিয়র জুনিয়র শিল্পী ও সংস্কৃতিকর্মীদের আক্ষেপ রয়েছে। শিল্পীর সাথে সংগঠনের এটি একটি অমানবিক আচরণ। এখনকার চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি তাহলে কাদের স্বার্থে? এমন প্রশ্ন তোলেন তিনি।

বিগত দিনে একাধিক সিনিয়র শিল্পী এর চেয়েও ভয়ঙ্কর অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিলেন, কিন্তু তখনকার শিল্পী সমিতি অভিযুক্ত সদস্যের সদস্যপদ স্থগিত করেনি বরং তাদের জন্য রাস্তায় নেমেছিল বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

শাকিব খান মন্তব্য করেন, বর্তমান শিল্পী সমিতি সবাইকে এক করতে পারেনি, বরং বিচ্ছিন্ন করেছে। বিভেদ তৈরি করে ইন্ডাস্ট্রিতে কাজের পরিবেশ নষ্ট করেছে। এমনকি চলচ্চিত্রের বর্তমান দুর্দশার জন্যও তিনি শিল্পী সমিতির এমন আচরণকে দায়ী করেন।

তবে পরীমণির মামলা এখনও বিচারাধীন হওয়ায় ওই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি শাকিব খান। তিনি বলেন, তার কী অপরাধ সেটা বিশ্লেষণে যাচ্ছি না। দেশের প্রচলিত আইন আদালতের প্রতি শ্রদ্ধা রয়েছে। নিশ্চয়ই নিরপেক্ষ তদন্ত শেষে সঠিক বিচার হবে।

পরীমণির ক্ষেত্রে আইন তার স্বকীয়তা বজায় রাখবে। এছাড়া পরীমণি যখন ফিরবে তার ভুল থেকে শিক্ষাও নেবে বলে আশা প্রকাশ করেন শাকিব খান।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply