আফগানিস্তানে আবারও ঘাঁটি গেড়ে বসবে আল কায়েদা: ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী

|

ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেস। ছবি: সংগৃহীত

আফগানিস্তানে আবারও ঘাঁটি গেড়ে বসবে আল কায়েদা, এমন শঙ্কা জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেস। বিদেশি সেনা সরে যাওয়ায় দীর্ঘ মেয়াদি গৃহযুদ্ধের পথে যাচ্ছে আফগানিস্তান। এই সুযোগে সেখানে আবারও জঙ্গিরা অবস্থান সুসংহত করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ব্রিটেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেস বলেন, এটা নিশ্চিত যে আফগানিস্তানে একটা দীর্ঘস্থায়ী গৃহযুদ্ধ আসন্ন। সেক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সঙ্কট হলো আল কায়েদা। কারণ এ ধরনের সংঘাতপূর্ণ অঞ্চলেই আল কায়েদার মতো জঙ্গি গোষ্ঠীগুলো আশ্রয় নেয়। তবে এটাও বলতে পারি যদি আল কায়েদা কখনও আফগানিস্তানে ঘাঁটি গাড়ে তাহলে আবারও ব্রিটেন সেখানে সেনা পাঠাবে।

বেন ওয়ালেস আরও বলেন, অবশ্যই আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার করাটা সবচেয়ে ভুল সিদ্ধান্ত। কারণ এটা তো স্পষ্ট ছিলোই যে, আফগানিস্তান থেকে বিদেশি সেনা সরে গেলেই সেখানে দখলদারিত্ব চালাবে তালেবান। এবং ঘটনা তাই হয়েছে। কারণ আফগান বাহিনীর পক্ষে সম্ভব নয় তালেবানকে ঠেকানো।

ব্রিটেনের সাবেক চিফ অফ স্টাফ রিচার্ড ব্যানেট বলেন, ব্রিটিশ এবং মার্কিন সেনা সরে আসার পর সেখানে বড় ধরনের শূন্যতা সৃষ্টি হবে। আর এই সুযোগ নেবে পাকিস্তান, রাশিয়া, চীন এবং তুরস্ক। এই দেশগুলো সেখানে নিজেদের সামরিক হস্তক্ষেপ চালাবে। ফলে আফগানিস্তানে যে দীর্ঘমেয়াদি সংঘাত সৃষ্টি হবে তার সমাধান হওয়া প্রায় অসম্ভব।

সাবেক আফগান দোভাষী নাজির আইন জানান, এভাবে বিদেশি সেনারা চলে আসবে এটা আফগানরা কখনই ভাবতে পারেনি। তালেবানের সহিংসতার মুখে যেভাবে ব্রিটিশ এবং মার্কিন সেনারা সাধারণ আফগানদের ফেলে রেখে চলে এসেছে এটা অগ্রহণযোগ্য। তাহলে এই ২০ বছর সেখানে থেকে লাভ কী হলো?

একের পর এক শহর দখল করে উল্লাস করছে তালেবান সদস্যরা। শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট থেকে আগেই সরে গেছে আফগান সেনারা। ফলে বিনা বাধায় তালেবান সদস্যরা দখলে নিয়েছে বিভিন্ন প্রাদেশিক কার্যালয়। এদিকে, জাতিসংঘের শঙ্কা যেকোনো মুহূর্তে বড় ধরনের মানবিক শঙ্কটের মুখে পড়তে চলেছে আফগানিস্তান।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply