স্বামীর পরকীয়ার জেরে মেয়েকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা

|

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর:

স্বামীর পরকীয়া জেরে তিন বছরের মেয়ে কথাকে ঝুলিয়ে মারার পর মা পিয়া মন্ডল (২২) আরেক রশিতে নিজে ঝুলে আত্মহত্যা করেছেন।

শনিবার (৭ আগস্ট) বিকেলে যশোরের মনিরামপুরের কুলটিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। ভাড়ায় থাকা বাড়ির রান্নাঘর থেকে সন্ধ্যায় তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় নিহতের স্বামী কলেজ শিক্ষক কণার মন্ডলকে আটক করেছে পুলিশ। খবর পেয়ে সহকারি পুলিশ সুপার আশেক সুজা মামুন, মনিরামপুর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, চার বছর আগে পার্শ্ববর্তী উপজেলা অভয়নগর থানার দত্তগাতী গ্রামের ভগিরথ মন্ডলের মেয়ে পিয়ার সঙ্গে কণার মন্ডলের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই কণার মন্ডলের পরকীয়া প্রেম নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে প্রায় ঝগড়া হতো। এসবের মাঝেই জন্ম হয় কন্যা শিশু কথার। সবশেষ ঝগড়া হওয়ায় প্রায় এক মাস আগে সন্তানকে নিয়ে বাবার বাড়িতে চলে যায় পিয়া। তখন ভালো হয়ে যাবে এই আশ্বাস দিয়ে স্ত্রীকে আবারও ফিরিয়ে আনে স্বামী কণার মন্ডল।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শেখর চন্দ্র রায় জানান, পিয়ার স্বামী মশিয়াহাটি কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক। তারা কুলটিয়া গ্রামের ফাল্গুন মন্ডলের বাড়িতে ভাড়া থাকতো। বিকেলে ওই ভাড়া বাড়ির রান্নাঘর থেকে ঝুলন্ত অবস্থার তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

এসময় প্রিয়া মন্ডলের মা শিপ্রা মন্ডল বিলাপ করে বলতে থাকেন, জামাই কণারকে বহুবার ভালো হতে বলেছি, কথা শোনেনি। মেয়েটাও তাকে (কণার) বিপথ থেকে ফিরে আসতে বললেই মারধর করতো।

প্রিয়া মন্ডলের ভাই চন্দন মন্ডল বলেন, মন্ডলের প্রতিবেশী একজনের সাথে পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। এ নিয়ে পিয়ার সঙ্গে কণার মন্ডলের কলহ হয়েছে। একটি নয়, কণার মন্ডলের একাধিক পরকীয়া সম্পর্ক রয়েছে বলেও জানান তিনি।

মনিরামপুর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে মেয়েকে রশিতে ঝুলিয়ে মারার পর পিয়া আরেক রশিতে আত্মহত্যা করেছেন। স্বামীর পরকীয়া সম্পর্কের কারণে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

তিনি আরও জানান, ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরে এবং সার্বিক তদন্ত করে আত্মহত্যার পুরো রহস্য উন্মোচন হবে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply